Policy Research Institute - PRI Bangladesh

The Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) is a private, nonprofit, nonpartisan research organization dedicated to promoting a greater understanding of the Bangladesh economy, its key policy challenges, domestically, and in a rapidly integrating global marketplace.

Trade and Exchange Rate Policies for Export Diversification

Title

logo

Posted: 25 May, 2017 00:00:00          

Policy support for export diversification

Equal opportunities, flexible exchange rate hold the key

FE Report

http://epaper.thefinancialexpress-bd.com/2017/05/25/images/08_105.jpg

Handing out equal government policy supports to all exporting sectors and flexible currency-exchange rate are among factors crucial for diversifying Bangladesh's slim export basket.

Policymakers, business leaders and experts agreed on these and other policy recasts at a function Wednesday in Dhaka.

They said an effective exchange rate and policy reform are a sine qua non to attract higher foreign direct investment in various productive sectors for export diversification

According to them, other exporting sectors are not getting the same benefits from the government as enjoyed by the readymade garment (RMG) sector. The benefits include bonded- warehouse facility (BWF), back-to-back LC (letter of credit) and financial support from Export Development Fund (EDF).

The observations and suggestions came at a roundtable on 'Trade and Exchange Rate Policies for Export Diversification' organized by the Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) in the city.

 

Commerce Minister Tofail Ahmed and Bangladesh Investment Development Authority (BIDA) executive chairman Kazi M Aminul Islam were present as chief and special guests at the function, also addressed by a business leaders and experts.

PRI chairman Dr Zaidi Sattar moderated the roundtable while its executive director Dr Ahsan H Mansur delivered the address of welcome. 

"Non-RMG exports have not done well on average. During FY 1990 to 2016, they grew at less than 8.0 per cent per year as compared with 16 per cent for RMG," PRI vice-chairman Dr Sadiq Ahmed said, adding lots of new products have entered the market but few have prospered with the exception of footwear.

Heavy concentration on one product-RMG-and reliance on a few large markets are among the challenges against diversification of exports, he explained and suggested local and foreign investment in export industry to remove supply-side constraint upon export diversification.

Learning from the positive experience of RMG, the government should offer BWF and back-to-back LC to all exports, Mr Sadiq said, adding the system of duty drawback does not work properly whereas the BWF has delivered very good results for the apparel sector.

The NBR concern over leakages can be resolved through proper technical solutions, he said.

The presentation showed that the local-currency taka appreciated by 47 per cent, 34 per cent and 25 per cent against euro, US dollar and Indian rupee since 2006, 2010 and 2008 to 2016.

Such substantial appreciation of the local currency in real terms against major global currencies that underlies Bangladesh exports and imports suggests a huge currency tax on exports and is a major factor why most exports have failed to fire after ignition, it added.

A large appreciation of the real exchange rate over a long period poses a serious incentive problem for export and needs correction, he said, recommending the lowering of domestic inflation to address it.

He termed use of tariffs and para-tariffs for revenue mobilization a highly inefficient and high-cost tax strategy that must be re-examined urgently and reformed.

The proposed introduction of the new VAT law will help reduce the anti-export bias by eliminating many supplementary duties (SDs) and keeping the remaining SDs as trade- neutral, he showed in his presentation.

He recommended customs duties as only instrument for long-term trade protection by eliminating SDs and regulatory duties.    

The minister said local exporters are not taking advantages of trade benefit in many countries like Australia, New Zealand, Japan and China as they are confined to few markets, especially the US and the EU.

Stressing increased exports to countries that offer duty benefit, he said the government is providing cash incentives for many sectors and going to give such benefit to ICT sector.

Admitting that source tax is increasing annually, he also favoured doing something regarding exchange rate and easing the doing-business environment in the country.

The commerce minister also recommended increasing productivity to stay competitive on the global market.

 

The BIDA chairman recommended economic diversification that includes primary, manufacturing and services which would help in employment generation both in RMG and non-RMG sectors.

Dr Zahid Hussain, lead economist and country sector coordinator of the World Bank, said local market-based industries failed to grow in line with the support provided and common people pay for it buying products at a high rate.

While stressing protection for local industries, he suggested that protection should be time-bound and such support can be provided through generally depreciated currency.

He opined for withdrawing control over foreign-exchange market and suggested mid-term tax structure.

"The annual changes in decision hamper the investment environment," he told the meet.

There was so much talk including declaration of leather as product of the year regarding export diversification, but actually they did not work because of exchange rate, said Nihad Kabir, president of the Metropolitan Chamber of Commerce and Industry (MCCI).

Citing example, she said two years back exchange rate was Tk 110 which is now Tk 87 but cost of production did not decrease rather export cost went up.

Moreover, she said, due to infrastructure weakness, exporters have to use Dhaka airport instead of Chittagong sea port.

The chamber chief recommended keeping RMG sector where it is and giving other sectors the opportunity to flourish.

Abrar A Anwar, chief executive officer of Standard Chartered Bangladesh, listed footwear, toys, games, electronic and electrics, and ICT as the potential sectors after RMG.

Though ICT has problems like want of skilled manpower, he said foreign direct investment is needed for skills development and to go for high-end products.

Despite offering so many benefits, FDI is not coming, he said, suggesting policy reform in this regard.

He noted that RMG sector gets finance from the Export Development Fund (EDF) whereas other sectors don't.

President of Bangladesh Garment Manufacturers and Exporters Association (BGMEA) Md Siddiqur Rahman demanded depreciation of the local currency, further lowering of bank rates and a raise in cash incentives for new market exploration.

Export growth in the country's garment sector has slowed down following a declining global demand, he said, adding that competitor countries are reaping more advantage as they depreciated their respective currencies.

Terming the policy set for RMG, Md Saiful Islam, president of Leathergoods and Footwear Manufacturers and Exporters Association (LFMEAB), demanded equal support and stressed innovation, research and development for product diversification. 

munni_fe@yahoo.com

http://print.thefinancialexpress-bd.com/2017/05/25/173433

The Daily Star

12:00 AM, May 25, 2017 / LAST MODIFIED: 12:00 AM, May 25, 2017

Export basket should be diversified: analysts

Star Business Report

Bangladesh has the potential to export footwear, sportswear, denim products, toys, bags and electronic goods along with garment items, a top banker said yesterday.

The government can give go-ahead to foreign direct investments in the sectors, said Abrar A Anwar, CEO of Standard Chartered Bangladesh. The government should also find out the reasons why the foreign funds are not coming to the sectors despite having huge potential, Anwar said.

He spoke at a programme on export diversification, organised by the Policy Research Institute at its office in Dhaka.

As for example, Indonesia and Malaysia have received a lot of FDI in the sectors as many have already relocated their business from China to the two countries because of high cost of production, he said.

The cost of production did not decrease in Bangladesh although the local currency appreciated against the US dollar, said Nihad Kabir, president of the Metropolitan Chamber of Commerce and Industry.

She marked the inefficiency of the Chittagong port as one of the major causes responsible for the high cost of production.

Businessmen have to rely on expensive air shipments due to the poor performance of the country's premier sea port, Nihad said.

She suggested introducing an efficient management for the currency exchange system. Zahid Hussain, lead economist of the World Bank in Dhaka, suggested the local currency should be devalued.

The local industry should be protected through reducing the para-tariff regime, Hussain said.

Such kind of para-tariff regime reflects a negative impact on foreign investment in the country, he said.

The depreciation of the taka against the dollar will create a price pressure on consumer goods, which account for 13 percent of the country's total import value, said Ahmed Jamal, executive director of Bangladesh Bank.

As a result, the inflation on food items will go up, he said. Moreover, the central bank cannot fix the exchange rate anymore as the rate is determined by the market force, he said.

But, sometimes the central bank intervenes by selling and buying dollars from the local market to avoid the market become volatile, he said.

Saiful Islam, president of Leather-goods and Footwear Manufacturers and Exporters Association of Bangladesh, urged the business-people to be innovative in product diversification and market diversification on export.

Siddiqur Rahman, president of Bangladesh Garment Manufacturers and Exporters Association, said businesses are refraining from making fresh investments due to inadequate supply of gas and power in the sector.

Rahman suggested two or three economic zones should immediately be developed for the garment sector to attract more investment.

Sadiq Ahmed, vice chairman of the PRI, suggested allowing bonded warehouse facility and back-to-back letter of credit for all export sectors like the garment sector.

Commerce Minister Tofail Ahmed urged the businessmen to export products to some new markets like Japan, China, India, New Zealand, Chile and South Africa.

Kazi M Aminul Islam, executive chairman of Bangladesh Investment Development Authority, also spoke.

http://www.thedailystar.net/business/export/export-basket-should-be-diversified-analysts-1410394

 

New Age

Tax at source for export sector to rise in budget, says Tofail

Experts call for providing equal policy supports to all export sectors

Staff Correspondent | Published: 23:08, May 24,2017

      

http://www.newagebd.com/files/records/news/201705/16256_188.jpg

Commerce minister Tofail Ahmed, Bangladesh Investment Development Authority executive chairman Kazi M Aminul Islam, Policy Research Institute of Bangladesh vice-chairman Sadiq Ahmed and executive director Ahsan H Mansur are seen along with others at a discussion organised by PRI in the city on Wednesday. — New Age photo

Commerce minister Tofail Ahmed on Wednesday said that the government would raise the tax at source for the export sector in the upcoming budget for the next fiscal year.
He, however, did not specify how much the rate would be increased.
‘Countries like India give many benefits to their export sector. Although we say we give such benefits to our exporters, but we cannot actually give such benefits. For example, the tax at source [for export sector] which is now 0.7 per cent will be raised [in the budget],’ he said while speaking at a roundtable on ‘trade and exchange rate policies for export diversification’ organised by the Policy Research Institute of Bangladesh in the city.
He said that like the previous years, exporters would go to the prime minister with demand for reducing the source tax after its increase this year.
At the roundtable, experts called for providing equal policy supports to all export sectors to help diversify the country’s export basket.
They also suggested an effective exchange rate and policy reform to boost foreign direct investment for export diversification.
They said other exporting sectors are not getting the same benefit from the government as enjoyed by the readymade garment sector.
Bangladesh Investment Development Authority executive chairman Kazi M Aminul Islam was present as special guest.
PRI chairman Zaidi Sattar moderated the roundtable, while PRI executive director Ahsan H Mansur delivered welcome speech.
‘Non-RMG exports have not performed well on an average. During the fiscal years 1990-2016, they grew at less than 8.0 per cent a year as compared with
16 per cent growth for RMG,’ said PRI vice-chairman Sadiq Ahmed.
Heavy concentration on one product — RMG — and reliance on a few large markets are among the challenges for diversifying exports, he said suggesting local and foreign investment on exports to remove supply side constraint to export diversification.
An appreciation of the real exchange rate over a long period of time poses a serious incentive problem to exports and it needs correction, Sadiq said recommending lowering domestic inflation to address it.
Tofail said that the local exporters were not taking advantages of trade benefit in many countries like Australia, New Zealand, Japan and China as they were confined in few markets especially the US and the EU.
Stressing the need for an increase in exports to the countries that offer duty benefits, he said the government is providing cash inventive for many sectors and going to provide such benefit to the ICT sector.
Kazi M Aminul Islam recommended economic diversification in primary, manufacturing and services sectors, which would help employment generation both in RMG and non-RMG sectors.
Zahid Hussain, lead economist and country sector coordination of the World Bank, said local market-based industries failed to grow in line with the support provided and common people paid for it buying products at a high rate.
He suggested that protection should be time bound and such support could be provided through generally depreciated currency.
There are so much talks including declaring leather as the product of the year regarding export diversification but actually these did not work because of exchange rate, said Nihad Kabir, president of the Metropolitan Chamber of Commerce and Industry.
Moreover, due to infrastructure weakness, exporters have to use the Dhaka port instead of the Chittagong port, she said. 
Abrar A Anwar, chief executive officer of Standard Chartered Bangladesh, said footwear, toys, games, electronic and electrics, ICT were the potential sectors after the RMG sector.
Though the ICT has problems like skilled manpower, he said foreign direct investment was needed for skill development.
Md Siddiqur Rahman, president of the Bangladesh Garment Manufacturers and Exporters Association, demanded depreciation of local currency, further lowering of bank interest rate and raising cash incentive for exploration of new markets.
Leathergoods and Footwear Manufacturers and Exporters Association president Md Saiful Islam demanded equal support for all sectors and stressed innovation, research and development for product diversification. 

- See more at: http://www.newagebd.net/article/16256/tax-at-source-for-export-sector-to-rise-in-budget-says-tofail#sthash.K0UtqWDY.dpuf

http://www.newagebd.net/article/16256/tax-at-source-for-export-sector-to-rise-in-budget-says-tofail

 

প্রথম আলো

পিআরআইয়ের গোলটেবিল বৈঠকে প্রশ্ন

উচ্চ সুরক্ষা আর কতকাল

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৫ মে ২০১৭, ০২:০১

প্রিন্ট সংস্করণ

 দেশীয় শিল্পকে দীর্ঘ সময় ধরে উচ্চ হারে সুরক্ষা দেওয়া হলেও অনেক খাত তেমন এগোতে পারেনি। বরং আমদানিতে চড়া শুল্কের কারণে ভোক্তাদের উচ্চমূল্যে পণ্য কিনতে হচ্ছে। এ ধরনের সুরক্ষা কতকাল দেওয়া হবে, তার একটি মধ্যমেয়াদি কাঠামো থাকা উচিত।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত ‘রপ্তানি আয় বাড়াতে বাণিজ্য ও মুদ্রার বিনিময় হারসংক্রান্ত নীতি’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এসব কথা বলেন। গতকাল বুধবার রাজধানীর বনানীতে পিআরআইয়ের কার্যালয়ে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

এতে মোটা দাগে তিনটি পরামর্শ আসে। প্রথমত, রপ্তানিকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়ন বা টাকার মান কমানো। দ্বিতীয়ত, আমদানিতে উচ্চ শুল্ক হার কমানো, যাতে ক্রেতারা কম দামে পণ্য কিনতে পারে এবং দেশীয় বাজারনির্ভর খাতের বদলে রপ্তানিতে বিনিয়োগে মনোযোগ বাড়ে। তৃতীয়ত, রপ্তানি পণ্যে বৈচিত্র্য আনতে পোশাক খাতের মতো বন্ডেড ওয়্যারহাউস বিভিন্ন সুবিধা চামড়াসহ অন্যান্য খাতকে দেওয়া।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, রপ্তানির ক্ষেত্রে সম্ভাবনাময় খাত হিসেবে কয়েকটি শিল্পকে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে আগামী অর্থবছর থেকে নগদ সহায়তা দেওয়া হবে। তোফায়েল আহমেদ আগামী বাজেটে দেশের রপ্তানি খাতের উৎসে আয়করের হার বাড়বে বলে উল্লেখ করেন। এখনকার উৎসে করের হার শূন্য দশমিক ৭ শতাংশ।

অনুষ্ঠানের শুরুর দিকে বাণিজ্যনীতি ও বিনিময় হার নিয়ে একটি উপস্থাপনা তুলে ধরেন পিআরআইয়ের ভাইস চেয়ারম্যান সাদিক আহমেদ। তিনি সাম্প্রতিক রপ্তানি প্রবৃদ্ধি কমে যাওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে বলেন, ২০১৫-১৬ অর্থবছর পর্যন্ত ১০ বছরে ডলারের বিপরীতে টাকার প্রকৃত মান ৩৪ শতাংশ বেড়েছে। ভারতীয় মুদ্রা রুপির বিপরীতে ছয় বছরে টাকা শক্তিশালী হয়েছে ২৫ শতাংশ এবং আট বছরে ইউরোর বিপরীতে টাকার মান এগিয়েছে ৪৭ শতাংশ। তিনি বলেন, প্রতিযোগী দেশে তাদের মুদ্রার অবমূল্যায়ন হয়েছে। বিপরীতে টাকার এ মান বৃদ্ধি রপ্তানি খাতের ওপরে একধরনের করারোপ।

দেশের পাদুকা ২৭৩ শতাংশ, কৃষি প্রক্রিয়াজাত শিল্প ১৮৭ শতাংশ, হালকা প্রকৌশল শিল্প ২২০ শতাংশ, সিরামিক ২১৫ শতাংশ ও প্লাস্টিক পণ্য ২৬০ শতাংশ কার্যকরী হারে (ইফেকটিভ রেট অব প্রটেকশন) সুরক্ষা পায় উল্লেখ করে সাদিক আহমেদ বলেন, ‘২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করলে একটি খাত ৩৫ শতাংশ সুরক্ষা পায়। আমরা আসলে কখনো ভোক্তাদের কথা চিন্তা করি না।’

মূল প্রবন্ধের ওপর নির্ধারিত আলোচক হিসেবে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের মুখ্য অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেন বলেন, দেশীয় শিল্পকে দীর্ঘদিন ধরে উচ্চ হারে সুরক্ষা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এ সুবিধা পেয়ে শিল্প খাত তেমন এগোতে পারেনি। এর মূল্য দিতে হয়েছে ভোক্তাদের।

এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী জানতে চান দেশীয় শিল্পকে সুরক্ষার ক্ষেত্রে পরামর্শ কী। জবাবে সাদিক আহমেদ ও পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, টাকার মান কমালেও দেশীয় শিল্প সুরক্ষা পাবে।

টাকার মান কমালে দেশে পণ্যের দাম বেড়ে গিয়ে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যেতে পারে বলে উল্লেখ করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের নির্বাহী পরিচালক আহমেদ জামাল। তিনি বলেন, সবকিছু দেখেই বাংলাদেশ ব্যাংককে কাজ করতে হয়।

এমসিসিআইয়ের সভাপতি নিহাদ কবির রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনতে অন্যান্য খাতকে গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দেন। একই কথা বলেন পিআরআইয়ের চেয়ারম্যান জায়েদী সাত্তার।

বিশেষ অতিথি বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম বলেন, যেকোনো খাতকে এগিয়ে নিতে সমন্বিত নীতি সহায়তা দিতে হবে। পোশাক খাতকে সমন্বিত নীতি সহায়তা না দেওয়া হলে সেটা আজকের অবস্থানে আসত না।

অনুষ্ঠানে পোশাক রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী আবরার এ আনোয়ার, লেদার অ্যান্ড ফুটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সাইফুল ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

http://www.prothom-alo.com/economy/article/1192151/%E0%A6%89%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%9A-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%BE-%E0%A6%86%E0%A6%B0-%E0%A6%95%E0%A6%A4%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B2

 

 

http://bangla.samakal.net/template/samakal_organ/images/samakal_beta_logo.jpg

প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ২৫ মে ২০১৭

 

 

 

রফতানি বহুমুখীকরণে নীতি সংস্কার করতে হবে

http://bangla.samakal.net/assets/images/news_images/2017/05/25/thumbnails/untitled-4_295387.jpg

সমকাল প্রতিবেদক

রফতানি বহুমুখীকরণের জন্য মুদ্রাবিনিময় ও বাণিজ্য নীতির সংস্কার করা প্রয়োজন। সম্পূরক শুল্ক তুলে দিলেও দেশীয় শিল্প সুরক্ষার বিষয়টি বাণিজ্য নীতিতে গুরুত্ব দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে টাকার দরপতন হলে আমদানির বিকল্প দেশি পণ্য সুরক্ষা হবে। পাশাপাশি রফতানিকারদের জন্য প্রণোদনা হিসেবে কাজ করবে। 

গতকাল বুধবার ঢাকায় পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত 'ট্রেড অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রেট পলিসাইজ ফর এক্সপোর্ট ডাইভারসিফিকেশন' শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন বক্তারা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। পিআরআইর চেয়ারম্যান ড. জায়েদি সাত্তারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রতিষ্ঠানের ভাইস চেয়ারম্যান ড. সাদিক আহমেদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পিআরআইর নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। 


তোফায়েল আহমেদ বলেন, দেশে ব্যবসার ক্ষেত্রে অনেক সময় মুদ্রার বিনিময় হার সমস্যা হিসেবে হাজির হয়। এ ক্ষেত্রে দুদিক থেকে সমস্যা। যেমন কয়েকদিন আগে ডলারের দাম বেড়েছে। তখন আমদানিকারকরা কমানোর প্রস্তাব দিয়েছেন। ওই সময় রফতানিকারকদের কথা ভুলে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরকে একাধিকবার ডলারের দাম সমন্বয়ের জন্য ব্যবস্থা নিতে বলেছেন তিনি। অন্যদিকে রফতানিকারকরা ডলারের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিচ্ছেন। উভয় দিক বিবেচনা করে এ ক্ষেত্রে কিছু করা দরকার বলে মনে করেন তিনি। 

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, পণ্য ও বাজার বহুমুখীকরণে এগিয়ে আসতে হবে। বর্তমানে চীন, জাপান, ভারত, চিলিসহ অনেক দেশ শুল্কমুক্ত রফতানি সুবিধা দিয়েছে। এ সুবিধা কাজে লাগাতে হবে। পণ্য বহুমুখীকরণের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা সুযোগ গ্রহণ না করলে হবে না। তিনি আরও বলেন, চামড়াকে বর্ষপণ্য ঘোষণা করা হয়েছে। এর বাইরে তথ্যপ্রযুক্তি ও ওষুধ রফতানিতে ভালো করার সুযোগ আছে। বিশ্ববাজারে বহুমুখী পাট পণ্যের চাহিদা রয়েছে। 

বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম বলেন, আয় ও কর্মসংস্থানের কথা চিন্তা করলে অর্থনীতি বহুমুখীকরণের পরিকল্পনা নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে রফতানি বহুমুখীকরণে উৎপাদন ও সেবা খাতে জোর দিতে হবে। এ জন্য সমন্বিত নীতি প্রণয়ন করতে হবে। বিশেষ করে গুরুত্ব দিতে হবে মুদ্রা বিনিময় হার ও কর নীতি প্রণয়নে। কর ও বাণিজ্য নীতি হওয়া উচিত বিনিয়োগসহায়ক। সহায়ক নীতি না হলে বহুমুখীকরণ হবে না। তিনি বলেন, টাকার দরপতন হলে পণ্যের দাম বাড়াবে। ক্রেতাদের ওপর চাপ বাড়বে। অন্যদিকে টাকার দর বাড়লে রফতানিকারকদের আয় কমে যাবে। তাদের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা কমবে। এ দুটো দিক বিবেচনায় নিয়ে মুদ্রা বিনিময় হারের ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। 

বিশ্বব্যাংকের লিড ইকনোমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন বলেন, বহুদিন ধরে দেশি শিল্পে উচ্চ সুরক্ষা দেওয়া হয়েছে। তবে দেশীয় বাজার নির্ভর শিল্পের তেমন প্রবৃদ্ধি হয়নি। জনগণকে এর মূল্য দিতে হয়েছে। তিনি বলেন, দেশি শিল্পে সুরক্ষা দিলে তা নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য দিতে হবে। প্রতিবছর যে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হয় তা বিনিয়োগের পরিবেশের জন্য সহায়ক নয়। 

মূল উপস্থাপনায় ড. সাদিক আহমেদ বলেন, পোশাক রফতানিতে বহুমুখীকরণ হয়নি। রফতানি বহুমুখীকরণ না হলে পরিকল্পনা অনুযায়ী লক্ষ্য অর্জন বাধাগ্রস্ত হতে পারে। তিনি বলেন, দেশীয় শিল্প সুরক্ষার সহায়তা দীর্ঘমেয়াদে থাকা উচিত নয়। তৈরি পোশাক খাতের মতো সব রফতানি খাতের জন্য বন্ডেড ওয়্যার হাউস সুবিধা দেওয়া প্রয়োজন। ব্যাক-টু-ব্যাক এলসি সুবিধার জন্য একটি আদর্শ নীতিমালা সবার জন্য থাকা প্রয়োজন। 

বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সম্প্রতি রফতানি প্রবৃদ্ধি কমে গেছে। একদিকে পণ্য রফতানিতে দর কমে গেছে, অন্যদিকে গত চার বছরে টাকার দরপতন হয়েছে মাত্র ৪ শতাংশ। তিনি বলেন, রফতানিতে প্রতিযোগিতা সক্ষমতা 

ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে নীতিগত সহায়তা দিতে হবে। 

এমসিসিআইর সভাপতি নিহাদ কবির বলেন, আগে এক ইউরো ১১০ টাকা ছিল। তা এখন ৮৭ টাকায় নেমে এসেছে। কিন্তু উৎপাদন ব্যয় কমেনি। এর সমাধান না করতে পারলে ব্যবসা অন্য দেশে চলে যাবে। তিনি বলেন, পোশাক খাতে যে অবস্থা আছে তা ধরে রেখে অন্য খাতের সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে হবে।

- See more at: http://bangla.samakal.net/2017/05/25/295387#sthash.aCfIcll3.dpuf

http://bangla.samakal.net/2017/05/25/295387

 

 

 

The Daily Ittefaq

নতুন বাজারে ব্যবসায়ীদের আগ্রহ কম

পিআরআইর সেমিনারে বাণিজ্যমন্ত্রী

ইত্তেফাক রিপোর্ট২৫ মে, ২০১৭ ইংhttp://www.ittefaq.com.bd/print-edition/static/version/0.04/images/print.png

নতুন বাজারে ব্যবসায়ীদের আগ্রহ কম

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, বিশ্বের অনেক দেশ বাংলাদেশকে শুল্ক ও কোটামুক্ত বাণিজ্য সুবিধা দিচ্ছে। আমাদের ব্যবসায়ীদের নতুন বাজারে আগ্রহ কম। তিনি বলেন, চিলি, নেদারল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, চায়না, জাপান আমাদের শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধা দিচ্ছে। শুধু ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলে চলবে না। বিশ্বের যেখানে বাংলাদেশের পণ্যের চাহিদা রয়েছে, সেখানেই যেতে হবে। তথ্য প্রযুক্তি খাতে নগদ সহায়তা দেওয়ার চিন্তা-ভাবনা চলছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। বাণিজ্যমন্ত্রী গতকাল ঢাকায় পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআরআই) আয়োজিত ‘ট্রেড এন্ড এক্সচেঞ্জ রেট পলিসিজ ফর এক্সপোর্ট ডাইভারসিফিকেশন’ শীর্ষক গোল টেবিল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ সব কথা বলেন।

পিআরআই চেয়ারম্যান ড. জায়েদি সাত্তারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পিআরআই-এর ভাইস চেয়ারম্যান ড. সাদিক আহমেদ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশ্ব ব্যাংকের ঢাকা অফিসের লিড ইকনোমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন, বিজিএমইএ-এর সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, চামড়াজাত পণ্য রপ্তানিকারকদের প্রতিনিধি মো. সাইফুল ইসলাম এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন পিআরআই-এর নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ. মনসুর। আলোচনায় বক্তারা রপ্তানি বহুমুখীকরণের জন্য বাণিজ্য সুরক্ষা ব্যবস্থায় পরিবর্তন এবং ডলারের দাম পরিবর্তনের ক্ষেত্রে আরো নমনীয় হওয়ার আহ্বান জানান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তোফায়েল আহমেদ বলেন, রপ্তানি খাতের জন্য এখন বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে ডলারের দাম। কিছুদিন আগে ডলারের দাম বৃদ্ধির ফলে অনেক সমস্যা হয়েছিলো। আমি গভর্নরকে কয়েকবার ফোন করে বলেছিলাম পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার জন্য। ডলারের দাম এমন পর্যায়ে নির্ধারণ করতে হবে যাতে করে সব পক্ষই এ থেকে সুবিধা নিতে পারে। ডলারের দামের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আহমেদ জামাল বলেন, আমাদের আমদানির ১৩ শতাংশ ভোগ্যপণ্য, ফলে ডলারের দাম বাড়ালে মূল্যস্ফীতির সম্ভাবনা থাকে। 

মূল উপস্থাপনায় ড. সাদিক আহমেদ উল্লেখ করেন, আমাদের রপ্তানি গর্মেন্টস খাতেই আটকে আছে। রপ্তানি বহুমুখীকরণ হয়নি। তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, ১৯৯০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত সময়ে তৈরিপোশাক রপ্তানি বেড়েছে ১৬ শতাংশ হারে, অন্যান্য খাতে বেড়েছে মাত্র ৮ শতাংশ হারে। রপ্তানির কাঠামো পরিবর্তন হয়েছে; কিন্তু রপ্তানি বহুমুখীকরণ না হলে আমাদের ৭ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা অনুযায়ী লক্ষ্য অর্জন বাধাগ্রস্ত হতে পারে। শিল্প সুরক্ষার জন্য সরকারের দেওয়া সহায়তা দীর্ঘমেয়াদে থাকা উচিত নয়। রপ্তানিকারকদের মুদ্রা মানের পরিবর্তনের মধ্যমে সুবিধা দেওয়া যেতে পারে যেমনটি চীন করছে। তৈরি পোশাক খাতের মতো সকল রপ্তানি খাতের জন্য বন্ডেড ওয়্যার হাউজ সুবিধা দেওয়া যেতে পারে। ব্যাক-টু-ব্যাক এলসি সুবিধার জন্য একটি আদর্শ নীতিমালা সকলের জন্য থাকা প্রয়োজন বলে তিনি উল্লেখ করেন। রপ্তানি বাড়াতে ডলারের মূল্য নির্ধারণ পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনা প্রয়োজন বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

বিজিএমইএ-এর সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, নগদ সহায়তা দেওয়ার ফলে যদি দেশের রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়ে থাকে তবে অবশ্যই এটি দেওয়া উচিত। আমাদের তৈরি পোশাক শিল্পের রপ্তানি গড়ে ১০ শতাংশ হারে বাড়ছে। কিন্তু নীট পণ্যে রপ্তানি এখন ঋণাত্মক হয়ে গেছে। রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর আমরা কারখানা সংস্কারের পরেও আমাদের দেশের ব্যবসা অন্য দেশে চলে যাচ্ছে। তিনি বলেন, এ শিল্পের উন্নয়নে উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাগুলো শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ সুদে ঋণ দিতে চেয়েছিলো; কিন্তু সেটি কয়েক হাত ঘুরে সুদের হার ১০ শতাংশ হয়ে যাচ্ছে। মন্ত্রণালয় এটি ৬ শতাংশে বেঁধে দেওয়ার কথা বলছে; কিন্তু এই ঋণ এখনো দেওয়া শুরু হয়নি। তিনি বলেন, বন্ডেড ওয়্যার হাউজের অপব্যবহারের পরে এ নিয়ে কথা বলা হচ্ছে। এনবিআর কেন এটি আগেই ধরতে পারছে না।

বিশ্ব ব্যাংকের লীড ইকনমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন বলেন, প্রতিবছর এডহক ভিত্তিতে কর কাঠামোর পরিবর্তন করা হচ্ছে। এটি ডুইং বিজনেস পরিবেশকে প্রভাবিত করে। এ প্রেক্ষিতে একজন ব্যবসায়ী বিনিয়োগ সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে আরো সময় নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করে। সরকার রপ্তানিমুখী শিল্পে বিভিন্ন সহায়তা দিচ্ছে তবে প্রকৃত দেশীয় শিল্পের অগ্রগতি হয়নি। ট্যারিফ ও প্যারা ট্যারিফের ক্ষেত্রে সংস্কার করতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

http://www.ittefaq.com.bd/print-edition/trade/2017/05/25/197698.html

 

 

 

http://bonikbarta.net/bangla/uploads/logo.png

পিআরআইয়ের গোলটেবিল আলোচনায় বক্তারা

রফতানি খাতে বৈচিত্র্য আনতে সুযোগ কাজে লাগাতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২০:২২:০০ মিনিট, মে ২৫, ২০১৭

  

রফতানি খাতে বৈচিত্র্য আনতে সুযোগ কাজে লাগাতে হবে

রফতানি খাতে বৈচিত্র্য আনতে সুযোগ কাজে লাগাতে হবে

দেশের রফতানি খাত মূলত পোশাক শিল্পনির্ভর। সরকারের ধারাবাহিক নীতিগত ও প্রণোদনা সুবিধা কাজে লাগিয়ে এ খাত আরো বিকশিত হওয়ার চেষ্টা করছে। কিন্তু দেশে চাহিদা অনুযায়ী কর্মসংস্থান তৈরির জন্য এখন আর শুধু পোশাক খাতই যথেষ্ট নয়। কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি, বৈদেশিক মুদ্রা, বিনিয়োগের প্রবাহ বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন প্রয়োজনে রফতানি খাত আরো বৈচিত্র্যময় হওয়া দরকার। এ ব্যাপারে সরকার বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধাও দিচ্ছে। ব্যবসায়ীদের সেগুলো কাজে লাগাতে হবে। গতকাল পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত এক গোলটেবিল আলোচনায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

‘ট্রেড অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রেট পলিসিস ফর এক্সপোর্ট ডাইভারসিফিকেশন’ শীর্ষক এ বৈঠকে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিআইডিএ) নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী মো. আমিনুল ইসলাম। পিআরআই চেয়ারম্যান ড. জায়েদি সাত্তারের সঞ্চালনায় বৈঠকে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংস্থাটির ভাইস চেয়ারম্যান ড. সাদেক আহমেদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পিআরআই নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ. মনসুর। এছাড়া অনুষ্ঠানে বিশ্বব্যাংকের লিড ইকোনমিস্ট অ্যান্ড কান্ট্রি সেক্টর কো-অর্ডিনেটর ড. জাহিদ হোসেন, বিজিএমইএ প্রেসিডেন্ট সিদ্দিকুর রহমান, চামড়াজাত পণ্য ও ফুটওয়্যার রফতানিকারকদের সংগঠন এলএফএমইএবির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, মাইক্রোসফট বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বেসিসের পরিচালক সোনিয়া বশির কবির, মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) সভাপতি নিহাদ কবির, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবরার এ. আনোয়ার প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, বিশ্বের অনেক দেশই এখন বাংলাদেশকে শুল্ক ও কোটামুক্ত বাণিজ্য সুবিধা দিচ্ছে। এসব দেশে রফতানি বাজার সম্প্রসারণ করতে হবে। যেখানেই বাংলাদেশী পণ্যের চাহিদা দেখা যাবে, সেখানেই যেতে হবে। রফতানিকারকদের এজন্য আরো বেশি তত্পর হওয়া প্রয়োজন। শুধু ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে নিজেদের বাজার সীমাবদ্ধ রাখলে চলবে না। সরকার সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় রফতানি আয় বৃদ্ধির জন্য পণ্যের সংখ্যা বৃদ্ধি ও বাজার সম্প্রসারণকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে; তৈরি পোশাকের পাশাপাশি আইটি, ওষুধ, ফার্নিচার, জাহাজ নির্মাণ, চামড়া, পাটপণ্য ও কৃষিপণ্যের রফতানি বৃদ্ধির জন্য বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে। অনেক পণ্য রফতানিতে সরকারের পক্ষ থেকে নগদ আর্থিক সহায়তা দেয়া হচ্ছে।

এখন যদি ব্যবসায়ীরা এসব সুযোগ কাজে না লাগান, তবে রফতানি খাতে কীভাবে বৈচিত্র্য আনা যাবে— এমন প্রশ্ন রেখে মন্ত্রী বলেন, সরকার ২০২১ সাল নাগাদ দেশের রফতানির আকার ৬ হাজার কোটি ডলারে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। গত অর্থবছরে দেশের রফতানি ছিল ৩ হাজার ৪২৬ কোটি ডলার। চলতি অর্থবছর তা ৩ হাজার ৭০০ কোটি ডলারে পৌঁছাবে। ২০২১ সালের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে রফতানি পণ্যের বহুমুখীকরণ ও বাজার সম্প্রসারণের কোনো বিকল্প নেই।

কোনো একটি খাতের বিকাশকে বিঘ্নিত না করে রফতানি খাতে বৈচিত্র্য আনার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। তিনি বলেন, আমাদের ফুটওয়্যার খাতের সম্ভাবনা অনেক। এ সুযোগ কাজে লাগানো দরকার। কিন্তু নানা সমস্যার কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না।

মুদ্রা অবমূল্যায়নের প্রভাব ব্যাখ্যা করতে গিয়ে এমসিসিআই সভাপতি নিহাদ কবির বলেন, দুই বছর আগে ১ ইউরোর বিনিময়ে ১১০ টাকা পাওয়া যেত। এখন যাচ্ছে ৮৭ টাকা। তিনি প্রশ্ন করেন, এ পার্থক্যের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কি দেশে ব্যবসার খরচ কমেছে? পোশাক খাত দেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি। এ খাত তার অবস্থানেই থাকুক, কিন্তু এর সঙ্গে অন্য খাতের প্রয়োজনও মেটাতে হবে।

এলএফএমইএবি সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, রফতানি খাতের বৈচিত্র্যের জন্য সৃজনশীলতা আনতে হবে। এছাড়া কার্যকর মুদ্রা বিনিময় হার নির্ধারণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক বাংলাদেশের সিইও আবরার এ. আনোয়ার বলেন, দেশের রফতানি খাতে বৈচিত্র্য না আসার অনেক কারণ রয়েছে। এখানে দক্ষ জনবল নেই। বিদেশী বিনিয়োগ আসা প্রয়োজন, কিন্তু আসছে না। বিদ্যমান নীতি অনুযায়ী, বিদেশী বিনিয়োগকারীর ইকুইটি থাকতে হবে ৫০ শতাংশ। কিন্তু এত বেশি মূলধন নিয়ে আসা বিনিয়োগকারীদের জন্য সমস্যা। পোশাক খাত অনেক ধরনের সুবিধা পাচ্ছে। আমাদের একটি সামঞ্জস্যপূর্ণ নীতি প্রয়োজন।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নীতিসহায়তার দাবি তুলে বেসিস পরিচালক সোনিয়া বশির কবির বলেন, আমাদের খাতটিতে অবকাঠামোগত প্রয়োজন তেমন নেই। তবে মানবসম্পদের দক্ষতার ঘাটতি আছে। এ খাতে বৈচিত্র্য আনতে আমাদের নতুন কৌশলে মনোযোগ দিতে হবে। মনে রাখতে হবে, জিমেইলে অ্যাকাউন্ট থাকা মানেই কিন্তু ডিজিটাল বাংলাদেশ নয়।

এদিকে ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিদ্যমান নীতি সংস্কার, গ্যাস-বিদ্যুত্সহ অবকাঠামো নিশ্চয়তা এবং মুদ্রা বিনিময় হার নীতির মাধ্যমে রফতানি খাতে বৈচিত্র্য আনা সম্ভব।

http://bonikbarta.net/bangla/news/2017-05-25/118386/%E0%A6%B0%E0%A6%AB%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%BF-%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A7%88%E0%A6%9A%E0%A6%BF%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%86%E0%A6%A8%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%AF%E0%A7%8B%E0%A6%97-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A7%87-%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%97%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%B9%E0%A6%AC%E0%A7%87/

 

Natun Somoy logo

আইটি সেক্টরে আয়ের বিপুল সম্ভাবনা: বাণিজ্যমন্ত্রী


২৪ মে ২০১৭ বুধবার, ০৪:৫৭  পিএম

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

নতুনসময়.কম


আইটি সেক্টরে আয়ের বিপুল সম্ভাবনা: বাণিজ্যমন্ত্রী

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, দেশে আইটি সেক্টরে আয়ের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। পাট, চামড়াশিল্পসহ অন্যান্য রপ্তানি পণ্য দেশে উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

বুধবার পলিসি রিচার্স ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআরআই) আয়োজিত অনুষ্ঠানে ট্রেড অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রেইট পলিসিজ ফর এক্সপোর্ট ডাইভারসিফিকেশন শীর্ষক আলোচনা সভায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

নতুন ভ্যাট আইন দেশের ভোক্তাদের জন্য ‘সহনীয় হবে’ মন্তব্য করে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ভ্যাটের পরিমাণ ১৫ শতাংশের কম নির্ধারণ করা হবে। ভ্যাট আইনে ব্যবসায়ীদের জন্য ক্ষতিকর কিছু থাকবে না। ভ্যাটের হার কমলেও পরিধি বাড়ার কারণে ভোক্তাদের উপর কোনো চাপ পড়বে না। এ খাতে সরকারের আয়ও বাড়বে।

বাণিজ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ব্রুনাই বাংলাদেশের বন্ধুরাষ্ট্র। বিশ্বের উচ্চ মাথাপিছু আয়ের দেশের মধ্যে ব্রুনাই অন্যতম। তেলসমৃদ্ধ ব্রুনাইয়ের

Speech