Policy Research Institute - PRI Bangladesh

The Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) is a private, nonprofit, nonpartisan research organization dedicated to promoting a greater understanding of the Bangladesh economy, its key policy challenges, domestically, and in a rapidly integrating global marketplace.

রস্তাবিত মূসক আইনের আলোচনায় ব্যবসায়ীদের সাড়া কম

News Published: Thursday, Dec 08, 2011

প্রস্তাবিত মূসক আইনের আলোচনায় ব্যবসায়ীদের সাড়া কম

লেখক: ইত্তেফাক রিপোর্ট  |  বৃহস্পতি, ৮ ডিসেম্বর ২০১১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪১৮

প্রস্তাবিত মূসক আইন নিয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের নিয়ে বৈঠক ডাকা হলেও এ ব্যাপারে তাদের কাঙ্ক্ষিত সাড়া

মিলছে না। তবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা পর্ব সেরেই এ আইনটি চূড়ান্ত করতে চাচ্ছে। গতকাল বুধবার প্রস্তাবিত এ আইনের বিভিন্ন দিক নিয়ে স্টেকহোল্ডারদের নিয়ে একটি বৈঠকের আয়োজন করে এনবিআর। দুই পর্বের আলোচনার জন্য সেবা প্র দানকারী সংগঠন ও পরে উত্পাদনকারী সংগঠনগুলোকে নিয়ে এ বৈঠকের আয়োজন করে এনবিআর। কিন্তু প্রথম পর্বের আলোচনায় ১৫টি ব্যবসায়ী সংগঠনকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও এসেছে মাত্র একটি সংগঠন রিয়েল এস্টেট এন্ড হাউজিং এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ- রিহ্যাবের প্রতিনিধি আনিসুর রহমান খান। তিনি রিহ্যাবের ভ্যাট, ট্যাক্স রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান।  আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের একাধিকবার যোগাযোগ করে বৈঠকে উপস্থিত হয়ে তাদের মতামত দেয়ার আহবান জানানো হয়েছে। বিশ্ব ব্যাংকের সহযোগি প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের (আইএফসি) সহযোগিতায় যৌথভাবে এই বৈঠকের আয়োজন করে এনবিআর ও পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউট (পিআরআই)। এনবিআর চেয়ারম্যান ড. নাসির উদ্দিন আহমেদ এর সভাপতিত্বে এতে অন্যান্যের মধ্য আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধি অধ্যাপক ড. বেন টেরা, পিআরআই’র নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর, এনবিআরের বৃহত্ করদাতা ইউনিটের কমিশনার (মূসক) জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

বৈঠকে বক্তারা প্রস্তাবিত মূসক আইনের বিভিন্ন বিষয়ে তাদের মতামত তুলে ধরেন। এনবিআরের পক্ষে এই আইনের মূল বিষয়গুলো তুলে ধরেন কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম। তিনি বলেন, প্রস্তাবিত আইনটি বিদ্যমান ১৯৯১ সালের আইনের তুলনায় সহজবোধ্য। এই আইনের উল্লেখযোগ্য দিক হলো, কর কর্মকর্তা কর্তৃক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করার বিধান প্রত্যাহার করা। প্রস্তাবিত আইনে মূসক অব্যাহতির ক্ষেত্রকে সীমিত করা হয়েছে। তবে মূসক হার বিদ্যমান ১৫ শতাংশই রাখা হয়েছে। এছাড়া সংকুচিত ভিত্তিমূল্যে মূসক আরোপের বিধানকে সীমিত করা হয়েছে। প্রস্তাবিত আইনে কোন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক টার্নওভার ২৪ লাখ টাকা থেকে ৬০ লাখ টাকার মধ্যে হলে তিন শতাংশ হারে টার্নওভার কর দিতে হবে। এছাড়া অগ্রিম মূসক জমার বিধানও বাতিল করা হয়েছে। পরবর্তী মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে দাখিলপত্রের সাথে প্রদেয় কর হিসেবে কর জামা দিলেই চলবে। পণ্যবাহী যানবাহনে তল্লাশি ও আটকের ক্ষমতা বিলোপ করা হয়েছে এতে।

আলোচনায় অংশ নিয়ে রিহ্যাবের প্রতিনিধি প্রস্তাবিত আইনে ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারের বিধান বাতিল করায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ব্যবসায়ীদের হয়রানি না করে সম্মান দিয়ে অনেক বেশি পরিমাণে কর আদায় করা সম্ভব। এছাড়া বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে প্লট বা ফ্ল্যাট ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে মূসকের হার কী হবে সে বিষয়ে রিহ্যাবের বিশেষজ্ঞদের সাথে আলোচনা করে প্রস্তাব দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

আলোচনায় অংশ নিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান এই আইন বাস্তবায়ন করা গেলে হয়রানিমুক্ত পরিবেশে ব্যবসায়ীরা মূসক প্রদান করতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, প্রস্তাবিত আইনটি সহজভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে মূসক আদায় বাড়বে মনে করেন তিনি। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মূসক আইন পাসের পর এটি পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নে আসতে অরো দুই তিন বছর সময় লাগতে পারে।

Speech