Policy Research Institute - PRI Bangladesh

The Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) is a private, nonprofit, nonpartisan research organization dedicated to promoting a greater understanding of the Bangladesh economy, its key policy challenges, domestically, and in a rapidly integrating global marketplace.

Dialogue on “Improving Fiscal Transparency in Bangladesh”

View

News Published: Friday, Aug 11, 2017

mainLogo

Published : 11 Aug 2017, 01:00:48 | Updated : 11 Aug 2017, 15:36:24

     

JS should okay supplementary budget before spending: PRI

Muhith to pursue autonomy of BBS

JS should okay supplementary budget before spending: PRI

Finance Minister AMA Muhith speaks at a dialogue on

FE Report

Supplementary budgets requesting authorisation of additional spending should be placed in the Jatiya Sangsad (JS) before actual spending.

The suggestion was made in a study on fiscal transparency in Bangladesh.

Currently the ministries, divisions or agencies first spend money in addition to their budgetary allocations, and then take approval of the spent money from the parliament.

The local private think-tank Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) presented the research paper styled 'Improving fiscal transparency in Bangladesh' at a programme on Thursday. PRI Executive Director Dr Ahsan H Mansur authored the paper.

Finance Minister A M A Muhith was the chief guest of the programme, organised by the PRI at a city hotel.

Deputy chief of mission at US Embassy in Dhaka Joel Reifman joined the function as the special guest.

Former finance secretaries Zakir Ahmed Khan, Siddiqur Rahman and Dr Mohammad Tareq were also present at the dialogue.

Additional Secretary of Finance Division Mohammed Muslim Chowdhury, Executive Director of Institute of Inclusive Finance and Development Dr Mustafa K Mujeri, and former finance secretary Zakir Ahmed Khan were the panellists.

PRI Chairman Dr Zaidi Sattar moderated the function.

Dr Mansur, however, said the draft budget should be intensively scrutinised and vigorously debated along with justified amendments by the legislature.

He suggested such quick interventions for a period of 1-2 years to help Bangladesh improve its fiscal transparency performance.

He also noted that there is no fiscal responsibility law, which can dictate the regular publication of long-term effects of budgets and fiscal activities.

"Bangladesh does not have a legally defined fiscal responsibility law."

Dr Mansur in his paper said the national revenue administration should be legally protected from political directives, ensure tax payment rights, and report regularly to the public on its activities.

He said the national statistics agency should be protected by legislation that grants it technical independence in verifying compilation and publication of official statistics.

"In Bangladesh politicisation of data has been a known practice," he said.

The national statistical agency - Bangladesh Bureau of Statistics (BBS) - is under Ministry of Planning.

"The government may consider making it an independent body, accountable to the parliament," he recommended further.

A M A Muhith said he will pursue the issue of making BBS an autonomous organisation. "This is a good idea to make BBS an autonomous body."

He, however, said during his eight years as the finance minister he never discussed any report prepared by BBS.
 

As part of transparency in budget execution, the finance minister said the government prepares quarterly reports on budget performances.

The first quarterly report is duly discussed in the parliament, but the second quarterly report is not much discussed. The third quarterly report usually comes just before the budget announcement, so there is little chance for discussion on it.

He added that removal of poverty will help the country to come out from the middle-income stagnancy.

US deputy chief of mission Reifman said greater expertise and fiscal transparency are the most important things for Bangladesh economy. "Fiscal transparency is not only the issue of accounts or technicians, it is a fundamental issue, which has impact on the country's greater economy," he also said.

Bangladesh is going through a transition, and it is going to be a middle-income country by 2021. The country will need higher productivity and innovation to attain sustainable growth, he commented.

"It is possible through better management, and only fiscal transparency can ensure such management," the US deputy chief said.

Mr Reifman, who is the chargé d'affaires, said Bangladesh has made tremendous progress since its independence in 1971. It now has the second largest garment sector in the world.

"The US is proud to be a partner of its progress," he added.

Speaking at the function, PRI vice chairman Dr Sadiq Ahmed said there is major concern relating to the treasury's contingent liabilities emerging from the operations of the state-owned public non-financial and financial enterprises.

"The last time I looked at the accounts, the contingent liability of the non-financial SOEs amounted to Tk 3,254 billion in the fiscal year (FY) 2014, which was 24 per cent of the GDP," he said.

Similarly, the value of non-performing loans of public banks in that year was Tk 308 billion, which was another 1.7 per cent of the GDP.

"The point is while these contingent liabilities are a huge challenge for the treasury, there is no analysis on this issue in the budget."

He further said it is very important to have a proper database and analysis of the financial flows between the treasury and the SOEs covering all financial transactions, including subsidies, equities, loan write-offs, debt servicing, and investment financing etc.

Muslim Chowdhury said the government has taken moves to upgrade the existing classification system. "We've reviewed the classification, and there will be application of it from the next FY."

He said there are some reforms, initiated for speedy pension payments and other such type of payments, making the government machinery easier and more transparent.

 Renowned economist Dr S R Osmani said fiscal transparency is important from two perspectives - for conducting research and for citizens.

He said there are pre-budget consultations with different stakeholders, but there is no record of these, and they are unaware of their implications in the budget.

The research paper suggested that all mega infrastructure contracts should be made transparent and publicly available.

Detailed breakdown of subsidies to public corporations should be explicitly documented with the budget documents, it opined.

The production sharing contracts (PSCs), signed between the international corporations in the resources sector and the government are not published for public access, the paper mentioned.

jasimharoon@yahoo.com

http://www.thefinancialexpress-bd.com/2017/08/11/79522/JS-should-okay-supplementary-budget-before-spending:-PRI

 

The Daily Star

12:00 AM, August 11, 2017 / LAST MODIFIED: 12:18 AM, August 11, 2017

Ensure transparency in public spending

Analysts say govt should publish enough info on fiscal policies

http://www.thedailystar.net/sites/default/files/styles/big_2/public/feature/images/finance_minister_ama_muhith_4.jpg?itok=QATqI_64&c=ad545d3e5175f57a6d9da3e91f2d0fda

Finance Minister AMA Muhith speaks at a dialogue on fiscal transparency, at Hotel Amari in Dhaka yesterday. Photo: Star

Star Business Report

Bangladesh does not make public enough information related to fiscal policies and measures taken in budget every year to ensure transparency, said analysts yesterday.

At present, the government publishes some budget information but not enough to ensure an informed public debate, said Ahsan H Mansur, executive director of the Policy Research Institute.

Mansur's comment came while presenting a paper on improving fiscal transparency in Bangladesh at a dialogue held at Amari Dhaka.

PRI, a private research organisation, arranged the event, which was attended by Finance Minister AMA Muhith.

He made the comment citing that Bangladesh is classified under category C3 in the Open Budget Index prepared by the International Budget Partnership.

This means the country does not disclose adequate information related to fiscal issues, he added.

In his speech, Muhith said fiscal transparency is very important for ensuring the sustainability of reforms.

He said the paper placed many good suggestions, some of which could have been implemented had they been placed a couple of years ago.

Since the national election is approaching, it will not be a good year to initiate reforms, he said, adding that there would be no real discussion until 2020.

Muhith also stressed on continued effort to cut poverty. “Poverty reduction has to be the core of government objectives,” he added.

In his paper, Mansur cited the 2015 Fiscal Transparency Report of the US State Department, which said Bangladesh did not meet the minimum requirements of fiscal transparency and it did not make significant progress towards meeting the minimum requirements.

“Information on earnings from state-owned enterprises is included in the supplementary budget documents. However, information on allocation to the state-owned enterprises is not clearly presented and discussed in the budget,” he said.

Fiscal transparency can be seen as an end in itself and also as a means to promote good governance, accountability and efficient resource allocation.

The local government allocations are non-transparent, he said.

Citing the public-private partnership initiatives by the government, he suggested for framing modalities for fiscal accounting to ensure transparency in this area.

He also recommended for fixing revenue collection target based on reality.

“Revenue projection is done in an ad hoc manner, which often results in unrealistic projections,” Mansur said, adding that the budget presentation process lacks any analysis of major expenditures and revenue measures, and their contribution to policy objectives.

In particular, estimates of current and future budgetary impact are not provided, he said, adding that poverty and social impact analysis of the new fiscal measures are not generally presented to the parliament as part of budget preparation.

Citing the Production Sharing Contracts (PSC) signed by the government with international oil companies on a case-to-case basis, Mansur said the contracts are not published.

“PSCs should be published for public access. That is our legitimate demand,” he said, adding that subsidies given by the government to various state agencies are also not explicitly recorded. Mansur also said Bangladesh's defence and security policy scores poorly in terms of transparency.

Information on the defence budget include only aggregate figure and it does not cover all defence-related spending, especially regarding allocation or procurement.

Given the importance of defence budget, there should be more information available to parliament and people for an informed public debate on the size and composition in the current security context.

Mansur went on to cite neighbouring India as an example. India's defence budget explicitly lists details regarding allocation for capital expenditures, revenue expenditure and other information.

Bangladesh's military expenditure as a share of total expenditure is high in comparison with comparative countries like India and Vietnam, which also have large and strong standing armed forces, Mansur added.

“There is a major concern relating to the treasury's contingent liabilities emerging from the operations of the state-owned public non-financial and financial institutions,” said Sadiq Ahmed, vice-chairman of PRI.

The contingent liability of the institutions amounted to Tk 3,254 billion in fiscal 2013-14, which was 24 percent of that year's GDP.

Similarly, the value of the non-performing loans of public banks that year was Tk 308 billion, which was 1.7 percent of GDP, he said.

http://www.thedailystar.net/business/ensure-transparency-public-spending-1446913

 

প্রথম আলো

সরকারি আয়-ব্যয়ে স্বচ্ছতা আনার তাগিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক

১১ আগস্ট ২০১৭, ০১:০৮

প্রিন্ট সংস্করণ

http://paimages.prothom-alo.com/contents/cache/images/640x354x1/uploads/media/2017/08/11/e264b4752c856d9ab6ea95642c98436b-598caad386513.jpgহোটেল আমারিতে পিআরআই আয়োজিত ‘ইমপ্রুভিং ফিসক্যাল ট্রান্সপারেন্সি ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে গতকাল বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত l প্রথম আলো

বাংলাদেশে আয়-ব্যয়ের বিবরণ বিস্তারিতভাবে প্রকাশ করা হয় না। বাজেটের অনেক তথ্য যেমন জনসমক্ষে আসে না; তেমনি মধ্যবর্তী পর্যালোচনা হয় না। এমনকি নিরীক্ষা প্রতিবেদন তৈরি করাও হয় না। জাতীয় সংসদে সম্পূরক বাজেট নিয়ে খুব বেশি আলোচনা হয় না। এই অবস্থার উত্তরণে আয়-ব্যয়ে স্বচ্ছতা (ফিসক্যাল ট্রান্সপারেন্সি) আনার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের স্বল্প ও মধ্যমেয়াদি সংস্কার কার্যক্রম গ্রহণ করা উচিত।

গতকাল বৃহস্পতিবার বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত আলোচনা সভার মূল প্রবন্ধে এই সুপারিশ করা হয়। পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর এই প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

একই অনুষ্ঠানে পিআরআইয়ের সুপারিশ সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, দুই বছর আগে এ ধরনের সুপারিশ দিলে ভালো হতো। আগামী বছর হলো নির্বাচনের বছর, নানা কিছু আছে। আগামী বছর সংস্কার করার জন্য ভালো বছর নয়। তাঁর মতে, ২০২০ সালের আগে প্রকৃত অর্থে এসব সংস্কারের বিষয়ে আলোচনা হবে না। তবে যেকোনো বিষয়ে স্বচ্ছতা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটি সংস্কারকে টেকসই করে।

গুলশানের আমারি হোটেলে ‘বাংলাদেশের সরকারি আয়-ব্যয়ে স্বচ্ছতায় উন্নয়ন’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পিআরআই চেয়ারম্যান জাইদী সাত্তারের সভাপতিত্বে অর্থনীতিবিদ, কূটনীতিক, সাবেক আমলা, গবেষকেরা আলোচনায় অংশ নেন।

আয়-ব্যয়ের স্বচ্ছতায় সারা বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান কোথায়, তা বোঝানোর জন্য মূল প্রবন্ধে দুটি উদাহরণ দেওয়া হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, ইন্টারন্যাশনাল বাজেট পার্টনারশিপের (আইবিপি) উন্মুক্ত বাজেট সূচকে (ওবিআই) পাঁচটি ক্যাটাগরির মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান মাঝামাঝি সি থ্রি ক্যাটাগরিতে। অন্যদিকে ইউএস স্টেট ডিপার্টমেন্টের ২০১৫ সালের ফিসক্যাল ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আয়-ব্যয়ের স্বচ্ছতায় ন্যূনতম মান অর্জন করতে পারেনি বাংলাদেশ।

মূল প্রবন্ধে আরও বলা হয়েছে, ২০১৫ সালের হিসাবে বাংলাদেশের সামরিক ব্যয় বাজেটের ৯ দশমিক ৮ শতাংশ। এটি ভারত ও ভিয়েতনামের চেয়ে বেশি। ভারতে বাজেটের ৮ দশমিক ৭ শতাংশ এবং ভিয়েতনামে বাজেটের ৮ দশমিক ৩ শতাংশ সামরিক খাতে ব্যয় করা হয়। তবে বাংলাদেশের চেয়ে সামরিক খাতে বেশি ব্যয় করে থাকে পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা। পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ভারতের সামরিক ব্যয় অনেক বেশি উন্মুক্ত। প্রায় সবকিছুই ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের কাছে ভারত একটি উদাহরণ হতে পারে।

অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল আবদুল মুহিত বলেন, আগামী বছর থেকে সম্পূরক বাজেট নিয়ে জাতীয় সংসদে আলোচনা হবে। সম্পূরক বাজেট উত্থাপন করলাম আর পাস হলো, তা হবে না। তিনি আরও বলেন, একটি অগ্রিম বাজেট বিবৃতি দেওয়া হবে। এ ছাড়া নিজস্ব আয় বাড়াতে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধির পরামর্শ দেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স জোয়েল রেইফম্যান বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্যই আয়-ব্যয়ে স্বচ্ছতা আনা দরকার। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ হতে চায় বাংলাদেশ। প্রশ্ন হলো, বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশের ফাঁদে পড়বে কি না। এই ফাঁদ থেকে বের হতে উচ্চ উৎপাদনশীলতা প্রয়োজন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন পিআরআইয়ের ভাইস চেয়ারম্যান সাদিক আহমেদ, সাবেক অর্থসচিব জাকির আহমেদ খান, সিদ্দিকুর রহমান চৌধুরী ও মোহাম্মদ তারেক, সাবেক বাণিজ্যসচিব সোহেল আহমেদ চৌধুরী, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবদুল মজিদ, ইনস্টিটিউট ফর ইনক্লুসিভ ফিন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইএনএম) নির্বাহী পরিচালক মুস্তফা কে মুজেরি, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মুসলিম চৌধুরী, প্রাইসহাউসওয়াটারকুপারসের কৌশলগত অংশীদার মামুন রশীদ প্রমুখ।

http://www.prothom-alo.com/economy/article/1284766/%E0%A6%B8%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BF-%E0%A6%86%E0%A7%9F-%E0%A6%AC%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%9B%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%86%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%97%E0%A6%BF%E0%A6%A6

 

The Daily Ittefaq

হোল্ডিং ট্যাক্স বাড়াতে চান অর্থমন্ত্রী

১১ আগষ্ট, ২০১৭ ইংhttp://www.ittefaq.com.bd/print-edition/static/version/0.04/images/print.png

সরকারি প্রতিষ্ঠানের আয়-ব্যয়ের স্বচ্ছতা বাড়ানোর পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের

 

ইত্তেফাক রিপোর্ট

 

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের হোল্ডিং ট্যাক্স বাড়াতে চান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, আমি চাই দুই সিটি করপোরেশনে হোল্ডিং ট্যাক্স পুনঃনির্ধারণ করা হোক। এ বিষয়ে দুই মেয়রের সঙ্গে কথা হয়েছে। বর্তমানে দুই সিটি করপোরেশনের এই ট্যাক্স অনেক কম। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর গুলশানে আর্থিক নীতির স্বচ্ছতা বিষয়ক এক সংলাপে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।  গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউট (পিআরআই) ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসের উপ-প্রধান জোয়েল রিফম্যান ছাড়াও অর্থনীতিবিদ ও সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের বেশ কয়েকজন বর্তমান ও সাবেক কর্মকর্তা এতে বক্তব্য রাখেন। সংলাপে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পিআরআই নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর।

 

নিজের উদাহরণ টেনে অর্থমন্ত্রী বলেন, বনানীতে ১৪ কাঠার তার নিজের একটি বাড়ি রয়েছে। সেখানে বছরে হোল্ডিং কর আসে ১১ হাজার টাকা। বিভিন্ন রেয়াত বাদ দিয়ে তাকে পরিশোধ করতে হয় ছয় হাজার টাকা। এটি বর্তমান সময়ের বিবেচনায় অনেক কম। সর্বশেষ ১৬ বছর আগে হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণ হয়েছিল। তিনি বলেন, বাজেটে অর্থের যোগানের ক্ষেত্রে স্থানীয় সরকার এখনো শিশু।

 

আর্থিক স্বচ্ছতার বিষয়ে পিআরআইকে একটি গবেষণাকর্ম চালিয়ে তা প্রতিবেদন আকারে দেওয়ারও প্রস্তাব দেন মন্ত্রী। তবে তিনি বলেন, ওই প্রতিবেদনের আলোকে আগামী ২০২০ সালের আগে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হবে না।

 

জোয়েল রিফম্যান বলেন, মধ্যম আয়ের দেশে যেতে হবে; কিন্তু বাংলাদেশ যাতে মধ্যম আয়ের ‘ট্র্যাপে’ না পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখাও জরুরি।

 

আলোচনায় অংশ নিয়ে অর্থনীতিবিদরা সরকারের বাজেট ও আয়-ব্যয়ে স্বচ্ছতা আনার তাগিদ দেন। তারা বলেন, এটি কেবল জনগণের তথ্যের জন্যই নয়, বরং সরকারের সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে কার্যকরভাবে পরিচালনা করার জন্যও এটি প্রয়োজন। এ জন্য অনেক বেশি নির্ভরযোগ্য তথ্য-উপাত্ত প্রয়োজন।

 

মূল প্রবন্ধে ড. আহসান এইচ মনসুর সরকারি আয়-ব্যয়ের তথ্যের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতার ঘাটতির বিষয়টি তুলে ধরেন। সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি প্রতিরক্ষা খাতের ব্যয়েও আরো স্বচ্ছতার প্রয়োজনের কথা বলেন তিনি।

 

অর্থনীদিবিদ ড. মামুন রশিদ বলেন, সরকারের বড় বড় প্রতিষ্ঠান বিশেষত বিজেএমসি (জুট মিলস কর্পোরেশন), বিপিসি (বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন) বা পেট্রোবাংলার মতো প্রতিষ্ঠানের সঠিক নিরীক্ষা করা ও তা প্রকাশ করা দরকার।

 

বিআইডিএসের সাবেক মহাপরিচালক মোস্তফা কে মুজেরি বলেন, আর্থিক নীতির স্বচ্ছতার বিষয়টি অনেক বিস্তৃত। সরকারের পক্ষ থেকে এমন উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন, যাতে এ প্রক্রিয়া এগিয়ে যায়।

 

পিআরআইর চেয়ারম্যান ড. জায়েদি সাত্তাসের সভাপতিত্বে এ সময় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সাবেক সচিব সোহেল চৌধুরী, জাকির আহমেদ খান, ড. মোহাম্মদ তারেক, মোহাম্মদ আব্দুল মজিদ, পিআরআইর ভাইস চেয়ারম্যান ড. সাদিক আহমেদ প্রমুখ।

http://www.ittefaq.com.bd/print-edition/first-page/2017/08/11/215453.html

Speech