Policy Research Institute - PRI Bangladesh

The Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) is a private, nonprofit, nonpartisan research organization dedicated to promoting a greater understanding of the Bangladesh economy, its key policy challenges, domestically, and in a rapidly integrating global marketplace.

Media News-Improving Investment Climate: Key Policy Reforms and Institutional Priorities

View

News Published: Sunday, Mar 19, 2017

The Daily Star

Home  Business

12:00 AM, March 19, 2017 / LAST MODIFIED: 12:10 AM, March 19, 2017

Be less suspicious about source of FDI: experts

Star Business Report

The government should not be too much suspicious about the source of money if it wants more foreign direct investment, said a leading entrepreneur and a top official of a regulatory body yesterday.

Syed Nasim Manzur, managing director of Apex Footwear, said countries such as Mauritius, the British Virgin Islands and Ireland have attracted hefty amount of FDI as they have not questioned the source of fund.

He urged the government to be less suspicious about the 'colour of money', especially of the foreign investors.

Queries about the source of fund may discourage foreign investors and they may explore opportunities in other countries, said the entrepreneur at a dialogue at the Sonargaon hotel in Dhaka.

Kazi M Aminul Islam, executive chairman of Bangladesh Investment Development Authority (BIDA), said the colour of money doesn't matter. “We would like to be a global player.”

Think-tank Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) organised the dialogue on 'improving business climate: key policy reforms and institutional priorities'.

Speaking at the event, a number of experts identified chronic infrastructure deficit and a scarcity of land as the major obstacles to investment, which is a prerequisite for higher economic growth.

They called for more investment in infrastructure and their maintenance, continuation of policy support and one-stop services to attract both local and foreign direct investment.

Scarcity of land, inadequate skilled workforce and infrastructural deficiency have remained the major impediments to investment in Bangladesh over the years, said economist Wahiduddin Mahmud.

He said mega infrastructure projects will have to be undertaken along with small and medium-sized ones, to achieve a middle income country status.

“When we say that the investment-to-GDP ratio increases, that is gross investment. But we forget that from gross investment every year, there is a depreciation of capital asset. This has become more important as the public sector investment is increasing,” he said.

The former caretaker government adviser said there are some good-looking flyovers but if the roads below it are neglected, then the flyover may not contribute to your GDP. He requested the finance minister to allocate more funds for the maintenance of the projects under the development programme.

Prof Mahmud said many industrial plots were given to entrepreneurs over the years, but those have not been utilised properly. “So, land should be utilised properly and that is becoming pricier day-by-day.”

Finance Minister AMA Muhith said there was an effort in the last 15-20 years to introduce a 'one-stop service' to attract FDI. “But we have never seen the service.”

On export diversification, he said apparel will continue to grow as the major export item. “But we need to increase the number of other export items in the basket.”

Abrar A Anwar, chief executive officer of Standard Chartered Bangladesh, said the government should issue sovereign bonds to set a benchmark for the foreign investors, as many are not aware of the stories of Bangladesh.

“It may be that you don't need the money, but the sovereign bond will set a benchmark,” he said, adding that policy continuity and tax incentives are important for attracting long-term investment.

Nihad Kabir, president of the Metropolitan Chamber of Commerce and Industry in Dhaka, said the BIDA can't be allowed to become another Board of Investment.

“Private sector involvement in the BIDA is a must, and the BIDA should have the authority to hire people from the private sector.”

She said Myanmar and Pakistan are getting more FDI than Bangladesh because people don't know about Bangladesh. “The perception issue about Bangladesh needs to be dealt with.”

Asif Ibrahim, vice-chairman of Newage Group, said apart from developing new infrastructures, the country needs to modernise all existing infrastructures to achieve higher economic growth.

He said the investment on infrastructure, which stands at only 2-3 percent of gross domestic product, is insufficient.

Presenting a keynote, PRI Executive Director Ahsan H Mansur said gross investment now stands at 29.4 percent of GDP.

But the private sector investment, which accounts for 77 percent of the total investment, has virtually remained unchanged in relation to GDP, he said.

The investment level would have to go up to 34 percent to achieve the 8 percent economic growth target planned under the 7th five-year plan, he added.

Manzur of Apex Footwear suggested engaging multinational companies such as Unilever, British American Tobacco, Marico and Marks & Spencer that are operating in Bangladesh to build the country's brand image abroad.

He advised the government to improve the services at Hazrat Shah Jalal International Airport. “If I am a foreign investor, I would not come back for a second time to the airport.” 

http://www.thedailystar.net/business/be-less-suspicious-about-source-fdi-experts-1378201

mainLogo

Posted : 19 Mar, 2017 00:00:00

 

 

Finance Minister AMA Muhith addressing a seminar

Finance Minister AMA Muhith addressing a seminar

Finance Minister AMA Muhith addressing a seminar on 'Improving Investment Climate: Key Policy Reforms and Institutional Priorities,' organised by Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) at a city hotel on Saturday. Story on page1 — FE photo

Published : 18 Mar 2017, 22:52:09 | Updated : 19 Mar 2017, 11:04:28

 

 

 

BD needs to welcome FDI from tax havens

Entrepreneurs tell seminar

FE Report

Bangladesh should not discourage foreign direct investment (FDI) that would come from the world's major tax havens, speakers at a seminar recommended Saturday.

It would help increase the FDI inflow into the country, they said, taking part in the discussion.

Leading think tank Policy Research Institute (PRI) organised the seminar titled 'Improving Investment Climate: Key Policy Reforms and Institutional Priorities' at a hotel in the capital.

Bangladesh should look forward to the world's major tax havens to increase the inflow of foreign direct investment (FDI) in the country, said Syed Nasim Manzur, former president of Metropolitan Chamber of Commerce and Industry (MCCI).

"Colour of the money does not matter as long as that money flows into my country," he said. "From that point of view, the world's major tax havens can be a good source of investment for us."

A tax haven is usually referred to a country or jurisdiction that offers favourable tax or other conditions to its taxpayers than that of the other jurisdictions. Tax havens usually have a low-tax or no-tax regime or have generous tax incentives.

BD needs to welcome FDI from tax havens

Examples of such tax havens include Andorra, the Bahamas, Belize, Bermuda, the British Virgin Islands, the Cayman Islands, the Channel Islands, the Cook Islands, Hong Kong, The Isle of Man, Mauritius, Lichtenstein, Monaco, Panama, and St. Kitts and Nevis.

Drawing similar instances from the countries in the region, Mr. Manzur mentioned that the fourth largest FDI source for Vietnam last year was British Virgin Island while the biggest source of foreign investment for India in 2016 was Mauritius.

"It is all about changing the mindset," said the business leader, who is also the managing director of Apex Footwear -- the country's leading footwear manufacturer.

His view came against the backdrop of a growing consensus that the share of the FDI as percentage of the country's GDP continued to remain low as compared to other LDCs. In his keynote presentation, PRI executive director Dr. Ahsan H Mansur said the FDI continued to represent a small fraction of the GDP and the private investment with inflows reaching around US$ 2 billion in the last fiscal.

"FDI constitutes only 6 per cent of Bangladesh's GDP while it is 54 per cent for Vietnam, 13 per cent for South Asia and 27 per cent for LDCs," he said.

Mr Mansur also noted that the FDI could play an important role in export diversification and technology transfer. "We must not forget that it was South Korean FDI in RMG that unleashed the domestically-led RMG revolution in Bangladesh."  

Echoing with the observation, chairman of Bangladesh Investment Development Authority (BIDA) Kazi M. Aminul Islam said the tax havens could be a potential source of bringing big foreign investment into the country.

"I also agree that the colour of the money does not matter," he said, adding: "We have certain criteria for investment in this country and if they can fulfil those criteria, we would welcome investment from such tax havens."   

Mr. Islam was also critical about the age-old regulatory procedures in the country, which he considered as the major impediment to bolster investment.  

"We still have acts dating back one hundred years. We still have processes that are redundant and cumbersome. What New Zealand does in three steps, we do it in thirteen steps," he said.  

Finance minister AMA Muhith, who attended the programme as chief guest, emphasised on diversification of the country's export basket.

"Export of readymade garments should continue to grow. But at the same time, other items should increase their share in the overall export basket," he said.

Earlier, entrepreneurs present in the seminar noted that the present tax regulations impose 20 per cent tax as well as VAT on technical knowhow, which creates extra burden on bringing new technology in the country.

The finance minister said the issue could be reviewed through discussion with the entrepreneurs before the next budget.

Addressing the seminar, eminent economist Prof Wahiduddin Mahmud said that although a number of big infrastructure projects have been undertaken in the country in recent times, allocation should also be provided for maintenance of those infrastructures.  

BUILD chairman Asif Ibrahim recommended establishment of a project monitoring platform at the national level under public private partnership initiative to supervise and monitor the implementation of the big projects.

Noting that most of the government policies were being driven by the needs of RMG, speakers in the seminar also called for making the policies friendly to all other sectors.

mehdi.finexpress@gmail.com

http://www.thefinancialexpress-bd.com/2017/03/18/64713/BD-needs-to-welcome-FDI-from-tax-havens

DhakaTribune

Muhith for product diversification to boost export market

Muhith for product diversification to boost export market

The finance minister was addressing the dialogue titled “Improving Investment Climate: Key Policy Reforms and Institutional Priorities” as the chief guest at Sonargaon Hotel in the city.

Finance Minister AMA Muhith on Saturday called for product diversification to expand export market in the world with a view to making Bangladesh a middle-income country, reports BSS.

“Ready-made garment (RMG) is our main export product. The export volume has increased gradually, which is good for us, but we have to diversify products for boosting export earnings,” he said.

The finance minister was addressing the dialogue titled “Improving Investment Climate: Key Policy Reforms and Institutional Priorities” as the chief guest at Sonargaon Hotel in the city.

Policy Research Institute (PRI) and Bangladesh Investment and Development Authority (BIDA) jointly organised the high-level policy dialogue.

To make the country a middle-income one, Muhith said, Bangladesh would have to reduce dependence on RMG as exportable item.

Bangladesh can increase export earnings from different potential items including leather and Information and Communications Technology (ICT), he added.

Among others, BIDA Executive Chairman Kazi M Aminul Islam and former president of Dhaka Chamber of Commerce and Industry (DCCI) Asif Ibrahim took part in the discussion.

PRI Executive Director Dr Ahsan H Mansur presented his keynote paper.

He said Bangladesh has the momentum and potential to become an upper middle-income country and eliminate absolute poverty by 2030-31 financial.

“But realisation of these targets will require sustaining economic growth at more than 8%,” he added.

He said the role of BIDA in improving the investment climate as the empowered coordinating agency will be critical in this regard.

“BIDA has appropriately established, among others, two major objectives: establishing an effective One Stop Shop (OSS) for all investors and improving Bangladesh’s ranking to double digit levels by 2020,” he added.

“BIDA, as the new institution with a capable leader, will only be able to deliver in line with its targets and our expectations if it gets strong support from the highest level of the government in a sustained manner,” observed the PRI executive director.

http://www.dhakatribune.com/business/2017/03/18/muhith-product-diversification-boost-export-market/

 

 

 

প্রথম আলো

অর্থনীতি সংবাদ

ব্যবসায় পরিবেশ উন্নয়ন নিয়ে সেমিনারে নাসিম মঞ্জুর

আমি হলে বিমানবন্দর থেকেই ফেরত যেতাম’

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৯ মার্চ ২০১৭, ০৮:৪৯

প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে গতকালের সেমিনারে বক্তব্য দেন অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ l প্রথম আলোরাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে গতকালের সেমিনারে বক্তব্য দেন অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ l প্রথম আলো

দেশের প্রধান বিমানবন্দর হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে একটি বিপর্যয় হিসেবে অভিহিত করেছেন ব্যবসায়ীদের প্রভাবশালী সংগঠন মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) সাবেক সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর। তিনি বলেছেন, ‘আমি যদি বিদেশি বিনিয়োগকারী হতাম, তাহলে বিমানবন্দর থেকেই দেশে ফেরত যেতাম। বিমানবন্দরে নেমে আমাকে যদি ভিসা পেতে এক ঘণ্টার বেশি লাগত, ব্যাগ পেতে দুই ঘণ্টার বেশি লাগত, মশার কামড় খেতে হতো...এটা আমাদের দেশ সম্পর্কে ভালো পরিচয় নয়।’
রাজধানীতে গতকাল শনিবার ‘ব্যবসায় পরিবেশের উন্নয়ন: প্রধান নীতিগুলোর সংস্কার ও প্রাতিষ্ঠানিক অগ্রাধিকার’ শীর্ষক এক সেমিনারে সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর এসব কথা বলেন। বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) সোনারগাঁও হোটেলে এ সেমিনারের আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে নাসিম মঞ্জুর ছয়টি সুপারিশ তুলে ধরেন। এর মধ্যে পাঁচ নম্বরটি ছিল বিমানবন্দর-সংক্রান্ত। তিনি বলেন, ঢাকা বিমানবন্দরকে ঠিক করতেই হবে। তাঁর দেওয়া বাকি পাঁচ পরামর্শ হলো এ দেশে কর্মরত বিদেশি কোম্পানিগুলোর কয়েকটিকে ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর (দূত) হিসেবে ব্যবহার করা; কিছু নির্দিষ্ট দেশকে ঠিক করা, যেখান থেকে বিদেশি বিনিয়োগকারী আনতে বাংলাদেশ আগ্রহী; বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন না করা; বিশ্বব্যাংকের লজিস্টিক পারফরম্যান্স ইনডেক্সে (পণ্য পরিবহন-সংক্রান্ত সূচক) উন্নতি করা এবং বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য ভিসা দেওয়ার ব্যবস্থা আরও সহজ করা।
ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে কয়েকটি কোম্পানির নামও উল্লেখ করেন নাসিম মঞ্জুর। এগুলো হলো ইউনিলিভার, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, কোটস বাংলাদেশ, ম্যারিকো ও মার্ক অ্যান্ড স্পেনসার।
বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন না করার বিষয়ে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) চেয়ারম্যানকে উদ্দেশ করে নাসিম মঞ্জুর বলেন, ‘বহুজাতিক কোম্পানিগুলো যদি কর স্বর্গকে (ট্যাক্স হ্যাভেন) বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ব্যবহার করে, আমাদের জানতে চাওয়া উচিত হবে না যে অর্থের উৎস কী।’ এ সময় বিডার চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘আমি একমত।’
মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করে পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, বিশ্বব্যাংকের ডুইং বিজনেস সূচকে বাংলাদেশ ১৮৯টি দেশের মধ্যে ১৭৬তম অবস্থানে আছে। বাংলাদেশের বিদেশি বিনিয়োগের স্থিতি মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৬ শতাংশ; যা দক্ষিণ এশিয়ার গড় হারের অর্ধেকের কম। যেসব দেশ ব্যবসায় পরিবেশের উন্নতি ঘটাতে পেরেছে, তারা বেশি বিদেশি বিনিয়োগ পেয়েছে।
অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, বিদেশি বিনিয়োগ যত বেশি আসে, তত ভালো—এ ধারণা ঠিক নয়। যেসব ক্ষেত্রে দেশিরা ভালো করছে, সেখানে বিদেশি বিনিয়োগের দরকার নেই। আবার বাজার যদি সুরক্ষিত হয়, সেখানে দেশিদের সুযোগ দেওয়া উচিত।
এমসিসিআইয়ের সভাপতি নিহাদ কবির একটি কোম্পানির যন্ত্রপাতি আমদানির ঘটনা উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরে বলেন, যন্ত্র আমদানিতে সরকার শুল্ক ছাড় দিয়েছে। কিন্তু তা পেতে নথিপত্র নিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) আবেদন করতে হয়। প্রথমে ফাইলটি দ্বিতীয় সচিব, এরপর প্রথম সচিব, এরপর সদস্য, এরপর চেয়ারম্যানের কাছে যায়। চেয়ারম্যান অনুমোদন করার ফাইলটি আবার সদস্যের কাছে যায়। সদস্য ফাইলটি ট্যারিফ কমিশনের কাছে পাঠান। ট্যারিফ কমিশন সেটি নিয়ে একটি গণশুনানি করে। এরপর সেটি এনবিআর চেয়ারম্যানের সইয়ের জন্য পাঠানো হয়। এরপর ফাইলটি যায় অর্থমন্ত্রীর সইয়ের জন্য। সেখান থেকে আবার এনবিআরে আসে। এভাবে দীর্ঘ সময় চলে যায় উল্লেখ করে এমসিসিআই সভাপতি বলেন, ‘এ ধরনের ফাইলে কেন অর্থমন্ত্রীর স্বাক্ষর লাগবে?’
এ সময় অর্থমন্ত্রী বলেন, তিনি কখনো এ ধরনের ফাইল পাননি। জবাবে নিহাদ কবির বলেন, ‘কিন্তু এটাই তো প্রক্রিয়া। এ জন্যই আমরা বলছি সবকিছু সহজ করতে।’
প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘১৫ থেকে ২০ বছর ধরে আমরা বিনিয়োগকারীদের ওয়ান স্টপ সার্ভিস (এক দরজায় সব সেবা) দেওয়ার ওয়াদা করেছি। কিন্তু কখনোই এখানে ওয়াট স্টপ সেবা ছিল না।’ তিনি উল্লেখ করেন, ওয়ান স্টপ সার্ভিস দেওয়ার বিষয়টি সরকারের উচ্চপর্যায়ের তদারকিতে আছে। এ নিয়ে বিডা কাজ করছে। অর্থমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের কিছু কিছু দাবি ও পরামর্শ লিখে নেন।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালক আফতাব-উল ইসলাম, বিল্ডের প্রধান নির্বাহী ফেরদৌস আরা, বেজার সদস্য এমদাদুল হক, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক বাংলাদেশের প্রধান িনর্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আবরার এ আনোয়ার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

http://www.prothom-alo.com/economy/article/1112347/%E2%80%98%E0%A6%86%E0%A6%AE%E0%A6%BF-%E0%A6%B9%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%AC%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A6%E0%A6%B0-%E0%A6%A5%E0%A7%87%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%87-%E0%A6%AB%E0%A7%87%E0%A6%B0%E0%A6%A4-%E0%A6%AF%E0%A7%87%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E2%80%99

 

The Daily Ittefaq

শিগগির কার্যকর হবে ওয়ান স্টপ সার্ভিস

বিনিয়োগ পরিবেশ নিয়ে সেমিনারে অর্থমন্ত্রী

 ইত্তেফাক রিপোর্ট১৯ মার্চ, ২০১৭ ইং

শিগগির কার্যকর হবে ওয়ান স্টপ সার্ভিস

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, অন্তত ১৫/১৬ বছর ধরে উদ্যোক্তাদের জন্য আমরা ওয়ান স্টপ সার্ভিসের কথা বলছি। এখনো এটি কার্যকরভাবে শুরু করা যায়নি। বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিস খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই বিডা (বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ) এটা নিয়ে কাজ করছে। ওয়ান স্টপ সার্ভিস কার্যকর করতে সেবা দেওয়ার সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে বিডা তাদের সম্ভাব্য সর্বোচ্চ সময় জানতে চেয়েছে। কীভাবে দ্রুততম সময়ে উদ্যোক্তাদেরকে এ সেবা দেওয়া যাবে সে ব্যাপারে তারা পদক্ষেপ নিচ্ছে। আশা করছি, খুব শিগগির উদ্যোক্তাদেরকে ওয়ান স্টপ সার্ভিসের সেবা দেওয়া সম্ভব হবে।

 

গতকাল শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে পলিসি রিসার্চ ইন্সটিটিউট আয়োজিত ‘বিনিয়োগ পরিবেশ উন্নয়ন: নীতিগত সংস্কার এবং প্রাতিষ্ঠানিক অগ্রাধিকার’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সেমিনারে নিবন্ধ উপস্থাপন করেন পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। প্যানেল আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ, ঢাকা চেম্বারের সাবেক সভাপতি আসিফ ইব্রাহিম এবং মেট্রোপলিটন চেম্বারের সাবেক সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিডা’র নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী আমিনুল ইসলাম।

 

অর্থমন্ত্রী বলেন, আমাদের রপ্তানি আয় তৈরি পোশাক খাতের ওপর অনেক বেশি নির্ভরশীল। আমরা রপ্তানি পণ্যে বহুমুখীকরণ করার চেষ্টা করছি। বর্তমানে ওষুধ খাত ভালো করছে। চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানিও ভালো হচ্ছে। তাছাড়া রপ্তানি বহুমুখীকরণের জন্য বিভিন্ন খাতে সরকার বিভিন্ন ধরনের প্রণোদনা দিচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, জমি পাওয়ার ক্ষেত্রে উদ্যাক্তাদেরকে বেশ সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়, এটা আমরা জানি। এজন্য সরকার অর্থনৈতিক অঞ্চল করছে। এছাড়া যমুনা নদীর পাশে উদ্যোক্তাদের জন্য জমির ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ঢাকা শহরের যানজট প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে যে রাস্তা রয়েছে তার মধ্যেই যানজট কমানো সম্ভব যদি শৃঙ্খলা আনা যায়। মন্ত্রী বলেন, উদ্যোক্তাদের সহায়তার জন্য আমাদেরকে লজিস্টিকস সহযোগিতা বাড়াতে হবে। তাই লজিস্টিকস সূচকে কীভাবে উন্নতি করা যায় সে পথ ধরার পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

 

কাজী আমিনুল ইসলাম বলেন, বিনিয়োগের পরিবেশ উন্নত না হওয়ায় বিদেশি বিনিয়োগ প্রাপ্তিতে আমরা পিছিয়ে রয়েছি। দেশীয় বিনিয়োগও কম হচ্ছে। তাই ব্যবসায়িক পরিবেশ উন্নত করতে আমরা কাজ করছি। স্বল্প মেয়াদি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে আমরা ওয়ান স্টপ সার্ভিসের মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে সেবামূলক অনুমোদনের বিষয়টি নিশ্চিত করতে চাই। মধ্যম মেয়াদে ব্যবসায়িক পরিবেশ উন্নত করা হবে। আর দীর্ঘমেয়াদে সুনির্দিষ্ট খাতে বিভিন্ন দেশকে বিনিয়োগে নিয়ে আসতে চাই। বিডা’র নির্বাহী চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশ সম্পর্কে বিদেশে কিছু নেতিবাচক ধারণা তৈরি হয়ে গেছে। আমরা এ ধারণা বদলে দিতে চাই।

 

ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, সরকার ২০৪০ এর দশকের মধ্যে উন্নত দেশ হওয়ার যে পরিকল্পনা করেছে তা বাস্তবায়নের জন্য প্রচুর পরিমাণে বিনিয়োগ দরকার। এক্ষেত্রে সরকারি বিনিয়োগ পর্যাপ্ত পরিমাণে হচ্ছে। কিন্তু বেসরকারি বিনিয়োগ জিডিপির তুলনায় স্থবির হয়ে আছে। আর বেসরকারি বিনিয়োগ না বাড়লে বর্ধিত চাহিদার কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে না। তাই বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। আহসান মনসুর বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় আমাদের এফডিআই প্রাপ্তি খুব কম। এর বড় কারণ হলো—বিনিয়োগের পরিবেশ যথাযথ নয়। তাই দ্রুত কার্যকর ওয়ান স্টপ সার্ভিস গড়ে তুলতে হবে। উদ্যোক্তাদেরকে নীতিগত সহায়তা দেওয়ার ব্যাপারে সরকারকে পদক্ষেপ নিতে হবে। গুণগত মানসম্পন্ন বিদ্যুতের ব্যবস্থা করতে হবে। প্রয়োজনে ভারত থেকে বিদ্যুত্ আমদানি করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে ভারত যেন কোনো ধরনের কর না বসায় সে ব্যাপারে সরকারকে ভূমিকা রাখতে হবে।

 

ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, উদ্যোক্তাদেরকে সহায়তা দেওয়ার জন্য বিডাকে প্রয়োজনীয় ক্ষমতা দিতে হবে। বিডা’র কর্মকর্তাদের মধ্যেও দক্ষতা বাড়াতে হবে। উদ্যোক্তাদের জন্য দেশে জমির সংকট রয়েছে। শ্রমিকদের দক্ষতার অভাব রয়েছে। এ বিষয়গুলো সমাধান করতে হবে। পাশাপাশি রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার নিশ্চয়তা থাকতে হবে। ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ আরো বলেন, শুধু এফডিআই আসলেই চলবে না, কোন খাতে আসছে তা বিবেচনা করা দরকার। যেসব খাতে আমাদের উদ্যোক্তারা ভালো করছে সেসব খাতের চেয়ে যেসব খাতে আমরা ভালো করতে পারছি না সেসব খাতে এফডিআই আনতে হবে।

 

সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর বলেন, সরকার যে কোনো প্রণোদনা এবং নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে শুধু তৈরি পোশাক খাতকে গুরুত্ব দিয়ে থাকে। অন্য খাতগুলোকেও গুরুত্ব দিতে হবে। বাংলাদেশের ইমেজ বাড়ানোর জন্য বিশ্বখ্যাত যেসব ব্র্যান্ড বাংলাদেশে রয়েছে তাদেরকে সামনে নিয়ে আসতে হবে। আমেরিকা ও ইউরোপের বাইরে আরো কিছু দেশ থেকে এফডিআই আনার জন্য লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। সবশেষে ভিসা প্রসেসিংয়ের কাজকে সহজ করার পরামর্শ দেন তিনি। সেমিনারে মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন মেট্রোপলিটন চেম্বারের প্রেসিডেন্ট নিহাদ কবির, বাংলাদেশ ইকোনমিক জোন অথরিটির (বেজা) নির্বাহী সদস্য এমদাদুল হক, সাবেক বাণিজ্য সচিব সোহেল চৌধুরী এবং মোনেম গ্রুপের ডিএমডি মঈনুদ্দীন মোনেমসহ আরো অনেকে। বক্তারা বলেন, করের আওতা বাড়িয়ে করদাতাদের ওপর চাপ কমানো দরকার। বাংলাদেশে কর্পোরেট কর অনেক বেশি, এটা কমাতে হবে। বন্ড মার্কেট উন্নত করতে হবে। পাশাপাশি বন্দরের ব্যবস্থাপনা দ্রততর করতে হবে।

http://www.ittefaq.com.bd/print-edition/trade/2017/03/19/183160.html

 

http://bangla.samakal.net/template/samakal_organ/images/samakal_beta_logo.jpg

প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ১৯ মার্চ ২০১৭, ০১:০৮:১২

 

 

 

এফডিআই বাড়াতে অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন নয়

বিনিয়োগ সংলাপে ব্যবসায়ীরা

http://bangla.samakal.net/assets/images/news_images/2017/03/19/thumbnails/untitled-27_278246.jpg

সমকাল প্রতিবেদক

সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) বাড়ানোর জন্য বিনিয়োগকারীদের অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন না তোলার প্রস্তাব দিয়েছেন বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তারা। এ জন্য নীতি সংস্কারেরও প্রস্তাব এসেছে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে। বছরের পর বছর আলোচনার পরও বিশ্বব্যাংকের ডুয়িং বিজনেস বা ব্যবসা সহজ করায় সূচকগুলোতে দৃশ্যমান উন্নতি না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেন তারা। 

গতকাল শনিবার সোনারগাঁও হোটেলে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) ও বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিড) আয়োজিত 'বিনিয়োগ পরিবেশের উন্নয়ন :নীতি সংস্কার ও প্রাতিষ্ঠানিক অগ্রাধিকার' শীর্ষক সংলাপে কয়েকজন ব্যবসায়ী এসব কথা বলেন। তারা আইন ও বিধি সংস্কারে রেগুলেটরি রিফর্মস কমিশনের মতো একটি সংস্থার গঠনের দাবি জানান। বিনিয়োগ বোর্ড এবং বেসরকারিকরণ কমিশন এক করে গঠিত বিডা যেন আগের মতোই আমলাতান্ত্রিক একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত না হয় সেই দাবি তোলেন ব্যবসায়ীরা।


অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, বিডা ওয়ান স্টপ সার্ভিস বিষয়ে জোরালো উদ্যোগ নিয়েছে। তিনি বলেন, সরকার অর্থনেতিক উন্নয়নের যে লক্ষ্য নিয়েছে তা অর্জনে বিনিয়োগ বাড়াতেই হবে। পাশাপাশি রফতানি বহুমুখীকরণ জরুরি। কেবল মাত্র তৈরি পোশাক শিল্পের ওপর ভর করে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জিত হবে না। দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার জন্য সরকার বিদ্যুৎ খাতের সংস্কারে জোরালো উদ্যোগ নিয়েছে। ব্যবসায়ীদের হতাশ না হয়ে সরকারকে পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিনিয়োগ গতিশীল করতে করসহ অন্যান্য খাতে সংস্কার করা হবে। 

অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, বিডার সদিচ্ছা থাকতে হবে। স্বাধীনভাবে অর্থনৈতিক ও কারিগরি দিক বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। প্রতিষ্ঠানটিকে গোষ্ঠীস্বার্থের বাইরে থাকতে হবে। তিনি বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য জমির অপ্রতুলতা দূর করা, জনশক্তির দক্ষতা বাড়ানো, অবকাঠামো দুর্বলতা দূর করা ও নীতির ধারাবাহিকতা রক্ষা করার পরামর্শ দেন। 

বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম বলেন, বিডা শুধু এফডিআই নয়, সামগ্রিক বিনিয়োগ নিয়ে কাজ করছে। বিনিয়োগ উন্নয়নের জন্য সেবার মান বাড়ানো ও নীতিতে সংস্কার আনা হবে। এফডিআই আকর্ষণে সর্বোচ্চ শিথিলতা দেখানো হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি জাতীয় কমিটি করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিদেশিদের ভিসা সহজ করার জন্য ই-পাসপোর্ট ও ই-ভিসা পদ্ধতির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি। 

পিআরআইর নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর মূল প্রবন্ধে বলেন, বিনিয়োগ বাড়াতে সেবার মান বাড়াতে হবে। তিনি বেজা, বিদ্যুৎ বিভাগসহ বিনিয়োগের প্রধান দপ্তরগুলোর মধ্যে সমন্বয় সৃষ্টির প্রস্তাব করেন। 

এমসিসিআইর সাবেক সভাপতি নাসিম মঞ্জুর বলেন, এফডিআইর জন্য মানসিকতা বদলাতে হবে। কোন দেশ থেকে কী রঙের (কালো না সাদা) অর্থ আসছে সেদিকে গুরুত্ব না দিয়ে কোন খাতে বিনিয়োগ হবে, কত কর্মসংস্থান হবে সে বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া দরকার। তিনি বলেন, ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ড ও মরিশাস থেকে বিনিয়োগ আসছে ভারতে। বাংলাদেশের সেক্ষেত্রে অসুবিধা কোথায়- প্রশ্ন রাখেন তিনি। এফডিআই বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশে বিনিয়োগ আছে এমন বহুজাতিক কোম্পানিকে ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর নিয়োগ করা এবং নির্দিষ্ট দেশের সঙ্গে সমঝোতা বাড়ানোর প্রস্তাব করেন নাসিম মঞ্জুর। 

এমসিসিআই সভাপতি ব্যারিস্টার নিহাদ কবির বলেন, পাকিস্তান ও মিয়ানমারের সার্বিক অবস্থা বাংলাদেশের তুলনায় খারাপ হওয়া সত্ত্বেও সেখানে বেশি এফডিআই কেন যাচ্ছে তা ভাবতে হবে। স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের সিইও আবরার এ আনোয়ারও বিদেশে অর্থ পাঠানোর জটিলতা দূর করার প্রস্তাব দেন। 

অনুষ্ঠানে বিল্ডের চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম, সাবেক বাণিজ্য সচিব সোহেল আহমেদ, বিল্ডের সিইও ফেরদৌস আরা বেগম, আইএফসির মাশরুর রিয়াজ, বেজার এমদাদুল হক, আব্দুল মোনেম লিমিটেডের মঈনুদ্দিন মোনেম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

- See more at: http://bangla.samakal.net/2017/03/19/278246#sthash.LV8LPuQ4.dpuf

http://bangla.samakal.net/2017/03/19/278246

 

http://bonikbarta.net/bangla/uploads/logo.png

শিল্প বাণিজ্য

ব্যবসার পরিবেশ উন্নয়ন নিয়ে সেমিনারে বক্তারা

বিআইডিএর ক্ষমতা ও কার্যকারিতা বৃদ্ধি জরুরি

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২১:৫৬:০০ মিনিট, মার্চ ১৯, ২০১৭

  

বিআইডিএর ক্ষমতা ও কার্যকারিতা বৃদ্ধি জরুরি

বিআইডিএর ক্ষমতা ও কার্যকারিতা বৃদ্ধি জরুরি

সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ (এফডিআই) বাড়ানোর জন্য বিনিয়োগকারীদের অর্থের উত্স নিয়ে প্রশ্ন না তোলার প্রস্তাব দিয়েছেন বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তারা। এজন্য বিনিয়োগ নীতিমালা সংস্কারের আহ্বান জানানো হয়েছে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে। সরকারের প্রতিনিধি ও অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা বিনিয়োগ পরিবেশ উন্নয়নে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিআইডিএ) ক্ষমতা ও কার্যকারিতা বৃদ্ধির পরামর্শ দিয়েছেন। গতকাল ব্যবসার পরিবেশ উন্নয়ন শীর্ষক এক সেমিনারে বক্তা ও আলোচকরা এসব কথা বলেন।

রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত ‘ইমপ্রুভিং বিজনেস ক্লাইমেট: কি পলিসি রিফর্মস অ্যান্ড ইনস্টিটিউশনাল প্রায়োরিটিজ’ শীর্ষক সেমিনারটি অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। এছাড়া বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) সাবেক সভাপতি আসিফ ইব্রাহিম ও মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) সাবেক সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর। সেমিনারে বিশেষে অতিথি ছিলেন বিআইডিএর নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী মো. আমিনুল ইসলাম।

মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন এমসিসিআইয়ের সভাপতি নিহাদ কবির, বাংলাদেশ ইকোনমিক জোন অথরিটির (বেজা) নির্বাহী সদস্য এমদাদুল হক, সাবেক বাণিজ্য সচিব সোহেল চৌধুরী, আবদুল মোনেম গ্রুপের ডিএমডি মঈনুদ্দীন মোনেম, বিল্ডের সিইও ফেরদৌস আরা বেগমসহ আরো অনেকে।

বক্তারা বলেন, করজাল সম্প্রসারণের মাধ্যমে বিদ্যমান করদাতাদের ওপর থেকে চাপ কমানো দরকার। বাংলাদেশে করপোরেট করহার অনেক বেশি; এটা কমাতে হবে। বন্ড মার্কেটকে উন্নত করতে হবে। পাশাপাশি বন্দরের ব্যবস্থাপনা দ্রুততর করতে হবে। পুরনো আমলের আইন ও বিধি সংস্কারের লক্ষ্যে রেগুলেটরি রিফর্মস কমিশনের মতো একটি সংস্থা গঠনের দাবি জানান তারা। বিনিয়োগ বোর্ড ও বেসরকারীকরণ কমিশন একীভূতকরণের মাধ্যমে গঠিত বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিআইডিএ) যেন আগের মতোই আমলাতান্ত্রিক একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত না হয়, সে ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান ব্যবসায়ীরা।

মূল প্রবন্ধে পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, বিনিয়োগ বাড়ানোর ক্ষেত্রে সেবার মান বৃদ্ধি অন্যতম পূর্বশর্ত। বিদেশী বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য ডুয়িং বিজনেস র্যাংকিংয়ে এগোতে হবে। বিআইডিএ ওয়ান স্টপ সার্ভিস আইন করতে যাচ্ছে। আইনটি হতে হবে প্রকৃত ওয়ান স্টপ সার্ভিসের জন্য। অপ্রয়োজনীয় বিধিবিধান বাদ দিতে হবে। বেজা, বিদ্যুত্ বিভাগসহ বিনিয়োগ-সংশ্লিষ্ট প্রধান প্রধান দপ্তরগুলোর মধ্যে সমন্বয়ের প্রয়োজন। মানসম্পন্ন বিদ্যুত্ সরবরাহ করতে হবে। সবকিছুই সম্ভব যদি রাজনৈতিক উদ্যোগ নেয়া হয়। সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হওয়ার যে পরিকল্পনা করেছে, তা বাস্তবায়নের জন্য প্রচুর পরিমাণে বিনিয়োগ দরকার। দেশে সরকারি বিনিয়োগ পর্যাপ্ত পরিমাণে হচ্ছে, কিন্তু বেসরকারি বিনিয়োগ জিডিপির তুলনায় স্থবির রয়েছে। বেসরকারি বিনিয়োগ না বাড়লে বর্ধিত চাহিদা মেটানোর মতো কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে না। তাই বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় আমাদের এফডিআইপ্রাপ্তি খুব কম। এর বড় কারণ আমাদের বিনিয়োগের পরিবেশ যথাযথ নয়।

প্রধান অতিথি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ১৫-১৬ বছর ধরে উদ্যোক্তাদের জন্য আমরা ওয়ান স্টপ সার্ভিসের কথা বলে আসছি। এখনো এটি কার্যকরভাবে শুরু করা যায়নি। বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিস খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিআইডিএ এ ব্যাপারের জোরালো উদ্যোগ নিয়েছে। তিনি আরো বলেন, সরকার অর্থনৈতিক উন্নয়নের যে লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করেছে, তা অর্জনের জন্য বিনিয়োগ বাড়াতেই হবে। পাশাপাশি রফতানি বহুমুখীকরণও জরুরি। কেবল তৈরি পোশাক শিল্পের ওপর ভর করে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব নয়।

দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার জন্য সরকার এ খাতের সংস্কারে জোরালো উদ্যোগ নিয়েছে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এত দিন বিদ্যুত্ উত্পাদন বাড়ানোর চেষ্টা হয়েছে। এখন মেয়াদোত্তীর্ণ বিদ্যুেকন্দ্র ও সঞ্চালন

ব্যবস্থা আধুনিক করা হবে। ব্যবসায়ীদের হতাশ না হয়ে সরকারকে পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতার আহ্বান জানান তিনি।

অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, উদ্যোক্তাদের সহায়তা দেয়ার জন্য বিআইডিএকে প্রয়োজনীয় ক্ষমতা দিতে হবে। এর কর্মকর্তাদের মধ্যেও দক্ষতা বাড়াতে হবে। প্রতিষ্ঠানটিকে স্বাধীনভাবে অর্থনৈতিক ও কারিগরি দিক বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। তাদের গোষ্ঠীস্বার্থের বাইরে থাকতে হবে। তিনি বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য জমির অপ্রতুলতা দূর করা, জনশক্তির দক্ষতা বাড়ানো, অবকাঠামোগত দুর্বলতা দূর করা ও নীতির ধারাবাহিকতা রক্ষার ওপর জোর দেন।

কাজী এম আমিনুল ইসলাম বলেন, শুধু এফডিআই নয়, বিআইডিএ সামগ্রিক বিনিয়োগ নিয়ে কাজ করছে। বিনিয়োগ উন্নয়নের জন্য সেবার মান বাড়ানো ও নীতিতে সংস্কার আনা হবে। এফডিআই বিষয়ে সর্বোচ্চ শিথিলতা দেখানো হবে। বিনিয়োগ পরিবেশ উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি জাতীয় কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিদেশীদের ভিসা সহজ করার জন্য ই-পাসপোর্ট ও ই-ভিসা পদ্ধতির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নাসিম মঞ্জুর বলেন, এফডিআইয়ের জন্য মানসিকতা বদলাতে হবে। কোন দেশ থেকে কী রঙের (কালো না সাদা) অর্থ আসছে, সেদিকে গুরুত্ব না দিয়ে কোন খাতে বিনিয়োগ হবে, ক

Speech