Policy Research Institute - PRI Bangladesh

The Policy Research Institute of Bangladesh (PRI) is a private, nonprofit, nonpartisan research organization dedicated to promoting a greater understanding of the Bangladesh economy, its key policy challenges, domestically, and in a rapidly integrating global marketplace.

Media News of Seminar on May 09, 2015

News Published: Sunday, May 10, 2015

Financial Express

Muhith promises payroll tax reforms

Hints at rationalising tax rates of telecom, tobacco sectors

FE Report

Muhith promises payroll tax reforms

Finance Minister AMA Muhith speaking as the chief guest at a seminar on 'Fiscal Policy for 2015-16 Budget in the Context of the Seventh Plan' held at the PRI conference room in the city on Saturday. — FE Photo

Finance Minister AMA Muhith Saturday promised to reform the system of collecting the payroll tax which now constitutes a meagre 2.0 per cent of the government's annual income tax revenue earning.

Mr. Muhith also hinted at rationalising the level of taxation on the telecom sector and lower segment of cigarettes.

Speaking as chief guest at a PRI seminar on the next national budget in the city, he also underscored the need for hiking the rate of tax on export proceeds of the apparel units.

"I wanted the tax on apparel export proceeds to go up 1.0 per cent and accordingly it had edged up at 0.8 per cent," said Muhith as chief guest at the seminar. Mr Muhith noted that on grounds of political disturbance in 2014 fiscal year it was cut down to 0.3 per cent.

"But, this time I want to go back," the finance minister said about higher taxing of apparel exports.

The leading private think tank organised the programme on fiscal policy for 2015-16 budget in the context of the seventh five-year plan at its office.

PRI chairman Dr Zaidi Sattar was moderator at the programme while president of the Metropolitan Chamber of Commerce and Industry (MCCI) Syed Nasim Manzur joined the function as special guest.

Presenting a set of suggestions on higher tax receipts and sustainable growth of industries, the PRI felt that the export proceeds should be fixed at least at the original level of 0.8 per cent.

Currently, the national exchequer gets around Tk 3.0 billion from the tax at source cut automatically on export proceeds.

The owners of readymade garment and knitwear industries pay it as their overall income tax--they need not pay income tax separately.

However, the PRI believes that tax receipts by the National Board of Revenue will rise to around Tk 9.0 billion once the government goes back to its previous rate at 0.8 per cent.

The PRI presented two papers on public resource mobilisation strategy and public expenditure strategy at the seminar. The keynotes were authored by its executive director Dr Ahsan H Mansur and vice-chairman Dr Sadiq Ahmed respectively. 

The paper on public resource mobilisation strategy mooted a number of proposals as to how to enhance revenues and help ensure sustainable growth of the industries concerned.

The finance minister sounded positive on the PRI proposals for the enhancement of payroll tax and tariff rationalisation applied for telecommunications sector.

Speaking as chief guest the finance minister agreed on the proposal for restricted uses or ban on hazardous chemicals now being consumed by different industrial plants causing many health- related diseases.

The finance minister also showed keen interest about the rationalisation of tobacco taxes as the lower segment of the cigarettes enjoys low taxes.

Speaking on the telecommunications taxation, Mr Muhith said there are misunderstandings among the government agencies about the telecom taxation.

He hinted that the next budget might rationalise it for further growth of the industry.

Earlier, Mr Mansur in his paper showed Bangladesh having levied extremely high levels of taxation on he telecom sector.Mr Mansur pointed out overall tax incidence at 56 per cent in the sector compared to 3.0 per cent in China.

Speaking on the payroll taxes (taxes that are collected by the employers from the salaries of the employees), Mr Muhith expressed his surprise over the mobilisation of 2.0 per cent of the payroll taxes in Bangladesh against 87.6 per cent in the United Kingdom and 62.7 per cent in Australia.

"It really remained neglected for long," the finance minister noted.

Finance minister AMA Muhith said attention would be given on payroll income tax reform in the face of dismal revenue earnings from this area.

"Idea of payroll tax is very impressive. I must honestly admit that this is an area that I did not realise before. It is totally neglected," he said.

He suggested that the NBR direct tax wing may set up a dedicated department to monitor withholding agents.

Out of 160 million people of the country, only 1.1 million pay income tax. "This is unbelievable! It's a damn shame. There should be minimum tax for everybody," said the finance minister.

PRI paper says payroll withholding is the most important source of income tax in all developed and emerging economies bar Bangladesh.

The finance mister said the use of hazardous chemicals either should be banned or restricted, considering its threat on the human body and the environment.

Mr Muhith said the tariffs should be rationalised on the tobacco products.

PRI showed that market share of low-segment cheap cigarettes has increased to 63 per cent in six years from 36 per cent in fiscal year 2008.

Effective tax rate on the low segment is almost a third of the rate on other segments (premium, high and medium), contributing to lower prices and the growing market shares of the low segments at the expense of huge revenue losses.

Following a proposal on the merger and acquisition of banks by panel discussant Anis A Khan, the finance minister said there is need for rules on the matter.

He said a guideline named liquidation process might be thought of.

The finance minister said the government is planning measures to ensure the use of the lands owned by different state-owned organisations.

"A survey has been done on the issue; we are planning proper use of those lands," Mr Muhith told the meet.

Speaking at the function, MCCI president Syed Nasim Manzur said the large taxpayers have been contributing much to the national exchequer and in return they are being harassed and penalised by the taxmen.

He said 13 per cent yield on the national savings certificate is affecting the other banking rates.

Mr Manzur also said import of hazardous chemicals should not be allowed in view of its bad impact on the human body and the environment.

He said the pharmaceutical industry should be allowed to invest abroad for registration of their products.

"Our existing law is very old and it needs to be updated with the need of the pharmaceutical industry to boost their exports," he told the meet on policy discourses.

He favours a separate slab for the small and medium enterprises in the new VAT law.

Former central bank governor Dr Mohammed Farashuddin was critical of the commercial banks for their higher charge on lending, despite rate cuts on deposits.

"You are lowering the interest rate on the deposits only," he said.

He was also critical of non-use of electric cash registers by the sweet makers.

Dr Farashuddin said there is need for nursing the export sectors and making ways for raising investment.

He said RMG should be diversified both in terms of its products and diversity.

Speaking as panel discussant, Centre for Policy Dialogue (CPD) executive director Dr Mustafizur Rahman said the government should take the matter of non-tax revenue (NTR) seriously.

He noted the NTR is falling.

He observed that the NBR estimates higher targets and for this reason they miss the mark in mobilising resources.

http://www.thefinancialexpress-bd.com/2015/05/10/92055

 

The Daily Star

12:00 AM, May 10, 2015 / LAST MODIFIED: 12:09 AM, May 10, 2015

PRI suggests taxing tobacco, garment exports further

http://www.thedailystar.net/sites/default/files/styles/big_4/public/feature/images/pri_suggest.jpg?itok=ZERlaRaB&c=840247549e32cc0ec9bbcd307299c37c

Centre, Finance Minister AMA Muhith attends a discussion on budget, organised by PRI at the think-tank's office in Dhaka yesterday. Photo: Star

Star Business Report

The government should focus more on taxes on tobacco, payroll and garment exports to achieve its revenue target for the next fiscal year, a senior official of Policy Research Institute said yesterday.

“We have to put more emphasis on taxation of tobacco products, withholding of payroll tax and increasing the tax rate on garment exports,” said Ahsan H Mansur, executive director of PRI.

Focusing on these sectors is needed to achieve the revenue target since the implementation of structural reforms in the VAT and direct areas has not yet gained momentum, he added.

Mansur spoke at a seminar on 'Fiscal policy for 2015-16 budget in the context of the Seventh Plan' co-organised by PRI and UKaid at the PRI office in Dhaka yesterday.

The weighted average prices of bidi and cigarettes are quite low in Bangladesh and increasing the rate is the only way to reduce smoking and generate 20 percent year-on-year growth in revenue from tobacco products.

In line with global best practices, Bangladesh should move to a uniform tax structure for all smoked tobacco products, according to Mansur.

PRI said the government can collect a huge amount of money from payroll withholding taxes.

Payroll withholding taxes are the taxes that an employer is required to deduct from its employees' gross wages, salaries, bonuses and other compensation. Payroll withholding is the most important source of income tax collection in all developed and emerging economies.

Tapping this most important source of income at source, that is, at the stage the payroll is distributed, is the most secured way to maximise income tax collection, said Mansur. “The tax administration in Bangladesh is very weak in this respect. For example, Bangladesh collects only 2-3 percent of the total income from payroll, compared with more than 87 percent in the UK and 63 percent in Australia.”

The NBR direct tax wing needs to set up a dedicated department to monitor withholding agents, get the withholdings linked to the payroll of staff provided by the business enterprises and follow up on persons who have paid withholding tax but not submitted their income tax returns, he added. 

PRI also suggested the government increase the tax rate on apparel exports in the upcoming budget.

The garment and textile sector is the most dynamic sector in Bangladesh and it is the most under-taxed sector as well. The tax rate on apparel exports was slowly increased from 0.25 percent of export volume to 0.8 percent in fiscal 2013-14.

However, in order to mitigate the high costs incurred by the sector due to political unrest, the rate was temporarily cut down to only 0.3 percent in fiscal 2014-15.

“This rate should now go back to at least the original level of 0.8 percent in FY16 and should further go up in the coming years. The revenue impact from this move would be about Tk 600 crore,” said Mansur. 

Sadiq Ahmed, vice chairman of PRI, stressed raising public revenue, increasing spending on health, education and social sector as a share of GDP, increasing the use of foreign aid pipeline and providing a clear statement of expenditure reforms for the seventh five-year plan.

Syed Nasim Manzur, president of Metropolitan Chamber of Commerce and Industry, asked the government to rationalise the supplementary duty to reduce the cost of doing business in the country.

He also urged the government to focus more on utilisation of unused foreign aid.

Mustafizur Rahman, executive director of Centre for Policy Dialogue, said Bangladesh has to maintain macroeconomic stability by focusing on higher investment and increasing productivity.

The National Board of Revenue has set its revenue growth target beyond its capacity in the last few years, he added.

Mohammed Farashuddin, former governor of Bangladesh Bank, stressed the need to strengthen the monitoring of VAT collection from a number of sectors such as sweets shops, jewellery and pharmacy.

Anis A Khan, vice chairman of Association of Bankers Bangladesh, urged the government to make a merger and acquisition policy, especially for the banking sector as most banks' financial strength is not good.  

AMA Muhith, finance minister, said the government will seriously consider the proposals made by PRI in the upcoming budget.  The withholding of payroll tax is very interesting, he said, adding that the government will pay special attention to it.

The tax rate on garment exporters will obviously change in the upcoming budget, he added.

Muhith is also frustrated over the number of e-TINs in the country. The country now has only 1.8 million e-TIN holders. “We have 160 million people. I think each person should have an e-TIN.”  The minister also agreed that the current taxation policy on the telecom sector is not good.

http://www.thedailystar.net/business/pri-suggests-taxing-tobacco-garment-exports-further-81388

 

BDNews24

Home Economy > Muhith wants to bring all ‘breadwinners’ under tax net

Muhith wants to bring all ‘breadwinners’ under tax net

Staff Correspondent,  bdnews24.com

Published: 2015-05-09 21:58:25.0 BdST Updated: 2015-05-09 21:58:25.0 BdST

http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2015/05/09/21_finance-minister_abul-maal-abdul-muhith_090515_0002.jpg/ALTERNATES/w620/21_Finance+Minister_Abul+Maal+Abdul+Muhith_090515_0002.jpg

Finance Minister AMA Muhith has revealed a plan to impose at least a ‘minimal tax’ on all ‘earning persons.’

“Out of 160 million people of the country, only 1.1 million pay income tax. This is absurd. There should be minimum tax for everybody,” he told a seminar in Dhaka on Saturday.

“It may be implemented in the next budget,” he added.

“Our revenue collection strategy is not so good. Only 1.1 million people pay tax, though the number of TIN (Tax Identification Number) holders is 1.85 million. This is shameful and unbelievable,” Muhith said.

He also said coordination between Bangladesh Telecom Regulatory Commission and other government agencies was needed to fix a “reasonable” tax rate for telephone operators and other information and communication technology firms.

Policy Research Institute (PRI) organised the seminar on “Expenditure Strategy for the 7th Plan with Focus on the FY2016 National Budget.”

Metropolitan Chamber of Commerce and Industry Presiodent Syed Nasim Manzur was the special guest.

http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2015/05/09/21_finance-minister_abul-maal-abdul-muhith_090515_0008.jpg1/ALTERNATES/w620/21_Finance+Minister_Abul+Maal+Abdul+Muhith_090515_0008.jpgHe said large infrastructure development projects should be implemented in time in order to make Bangladesh a middle-income country.

He also stressed reduction of interest rates on loans to create business friendly environment.  

PRI Executive Director Ahsan H Mansur, in his keynote paper, said two to four percent of the budget’s revenue target could not be achieved every year.

He said this was the reason why money could not be provided for the Sixth Five Year Plan.

Mansur emphasised modernisation of revenue collection mechanism to implement the Seventh Five Year Plan.

PRI Vice-Chairman Sadiq Ahmed, among others, also spoke at the seminar.

http://bdnews24.com/economy/2015/05/09/muhith-wants-to-bring-all-breadwinners-under-tax-net

 

Dhaka Tribune

Today's paper >> special >> published: 04:05 may 10, 2015 >> updated : 20:18 may 10, 2015
Muhith suggests payroll income tax reform 

Tribune Report

http://www.dhakatribune.com/sites/default/files/imagecache/870x488_article_high/article/2015/05/10/31_0.jpg Finance Minister AMA Muhith at a seminar on fiscal policy for the 2015-16 fiscal year in Dhaka yesterday  
Photo- Dhaka Tribune

Finance minister AMA Muhith yesterday hinted that attention would be given to payroll income tax reform in the face of dismal revenue earnings from the area.

“The idea of payroll tax issue is very impressive. I must honestly admit that this is an area that I did not realise before. It is totally neglected,” he said.

Muhith said the Bangladesh payroll tax scenario against other countries is very poor. “It needs to be looked at.” 

The payroll tax issue, which caught the finance minister’s attention, was raised by a keynote paper on Public Resource Mobilisation Strategy.

Policy Research Institute executive director Ahsan H Mansur presented the paper at a seminar on “Fiscal Policy for 2015-16 Budget in the Context of the Seventh Plan.”

PRI organised the event at its office.     

Payroll taxes are taxes imposed on employers or employees, and are usually calculated as a percentage of the salaries that employers pay their staff. 

Payroll taxes generally fall into two categories: Deductions from an employee’s wages, and taxes paid by the employer based on the employee’s wages.

Mansur’s keynote paper compared the payroll tax scenario of Bangladesh with two countries – United Kingdom and Australia. 

In the fiscal year 2012, income from payroll tax of Bangladesh was only 2%, but in the UK and Australia it was 87.6% and 62.7% respectively during the period. 

The finance minister also hinted that income tax rate on the RMG and knit exporters would be higher in the next fiscal year. “I wanted it to go up to 1% and accordingly it has edged up to 0.8%.”

“It reduced to 0.3% due to the political turmoil in FY2014. But this time I want it to go back,” finance minister said. 

PRI suggested this rate on the export proceeds should be at least the original level of 0.8%. 

Out of 160m people of the country, only 1.1m pay income tax. “This is unbelievable! it’s a damn shame. There should be a minimum tax for everybody,” he said.

About tobacco tax, the keynote paper said the market share of the low segment cheap cigarettes has increased to 63% in last six years from 36% in FY2008, leading to a huge loss of revenue, and the volume of such segment cigarettes expanded at more than 26% a year at the expense of the medium segment.

Muhith said, “I have already given it to the NBR. In fact, tobacco has been identified as a special issue to look at.” 

However, he said despite rigorous anti-tobacco campaigns worldwide, use of tobacco has not been diminished.   

About mobile taxation, he said the existing mobile taxation policy is not very good.

On loss-making state-owned enterprises, finance minister said it is politically difficult to get rid of them. 

“There might be a policy guideline about the use of land under the SoEs. The Privatisation Commission carried out a survey on the unused land of SoEs, which is good work at the end of its demise.”

Strongly criticising closing down the country’s first and the largest 52-year-old state-owned Adamjee Jute Mills to cut the staggering losses through golden handshake in 2002 by the then BNP-led government, Muhith said that was not a good solution. Many golden handshake people were back at the same institution after the change of the government, he said. 

On the merger and acquisition issue, he said no firms get bankruptcy in Bangladesh, so there was no use of making rules on this. “But there should be a liquidation process guideline.”     

A galaxy of experts and analysts also attended the seminar.

They thought up various suggestions for the government on different issues, including making diversification of export policy, fixing different VAT slabs for different sectors, controlling the use of hazardous chemicals, the government expenditure, priority-wise infrastructural development and human resource development. 

- See more at: http://www.dhakatribune.com/business/2015/may/10/muhith-suggests-payroll-income-tax-reform#sthash.usXIc68U.dpuf

 

The Daily Observer

Muhith wants all 'breadwinners' under tax net

Published : Sunday, 10 May, 2015,  Time : 12:00 AM,  View Count : 25


Finance Minister AMA Muhith has revealed a plan to impose at least a 'minimal tax' on all 'earning persons.'
"Out of 160 million people of the country, only 1.1 million pay income tax. This is absurd. There should be minimum tax for everybody," he told a seminar in Dhaka on Saturday.
"It may be implemented in the next budget," he added.
"Our revenue collection strategy is not so good. Only 1.1 million people pay tax, though the number of TIN (Tax Identification Number) holders is 1.85 million. This is shameful and unbelievable," Muhith said.
He also said coordination between Bangladesh Telecom Regulatory Commission and other government agencies was needed to fix a "reasonable" tax rate for telephone operators and other information and communication technology firms.
Policy Research Institute (PRI) organised the seminar on "Expenditure Strategy for the 7th Plan with Focus on the FY2016 National Budget."
Metropolitan Chamber of Commerce and Industry Presiodent Syed Nasim Manzur was the special guest.
He said large infrastructure development projects should be implemented in time in order to make Bangladesh a middle-income country. -bdnews24.com

- See more at: http://www.observerbd.com/2015/05/10/88067.php#sthash.yWhn9uc8.dpuf

 

Prothom Alo

পিআরআইয়ের আলোচনা

নতুন খাতে কর আরোপের সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: ০২:০৪, মে ১০, ২০১৫ | প্রিন্ট সংস্করণ

সরকারের রাজস্ব আদায় বাড়াতে নতুন নতুন খাতে করারোপের সুপারিশ করেছে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই)।

 সংস্থাটি সব ধরনের উৎস থেকে অর্জিত মুনাফায় করারোপ, বেতনসহ বিভিন্ন আয়ের ওপর করারোপ, তামাকশিল্পের ওপর কর বৃদ্ধি ও সম্পদ কর প্রবর্তনের সুপারিশ করেছে। এ ছাড়া তৈরি পোশাক খাতে উৎসে কর কমপক্ষে দশমিক ৮ শতাংশে উন্নীত করার প্রস্তাবও রয়েছে। 

পিআরআই গতকাল শনিবার ঢাকার বনানীর নিজস্ব কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রাক্-বাজেট আলোচনা সভায় এসব সুপারিশ-প্রস্তাব করেছে। সংস্থাটির চেয়ারম্যান জাইদী সাত্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। 
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘১৬ কোটি মানুষের দেশে মাত্র ১১ লাখ মানুষ কর দেন। এটি একটি অবাস্তব বিষয়। আমার ইচ্ছা, এ দেশের প্রত্যেক মানুষ কর দেবেন। ন্যূনতম কর হলেও সবারই তা দেওয়া উচিত।’ তিনি বলেন, ‘বেতন ও মজুরি থেকে কর আদায়ের বিষয়টি কখনো ভেবে দেখিনি। এটা বিবেচনা করা যেতে পারে।’ 
সভায় দেশে ব্যাংক দেউলিয়া এবং ব্যাংক একীভূতকরণের কোনো আইন না থাকার বিষয়ে আলোচনা হয়। এ সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশে ব্যাংক দেউলিয়া এবং ব্যাংক একীভূতকরণের কোনো আইন নেই। এই দুটি বিষয়ে আইন প্রণয়ন নিয়ে কাজ করা যেতে পারে। 
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন বলেন, ‘মিষ্টি ও ওষুধ কেনার সময় বিক্রেতা রসিদ দেন না। এতে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) পাওয়া যায় না।’ তিনি মনে করেন, সিগারেট ও বিড়িশিল্প হলো কর আদায়ের একটি খনি। এই খাত থেকে কীভাবে আরও বেশি রাজস্ব আদায় করা যায়, সেই নীতি ঠিক করার পরামর্শ দেন তিনি। 
বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, উচ্চ বিনিয়োগের মাধ্যমে উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন করাই এখন অন্যতম চ্যালেঞ্জ। আর রাজস্ব বোর্ডের সক্ষমতার চেয়ে বেশি রাজস্ব লক্ষ্য নির্ধারণ করা হচ্ছে বলে তিনি মনে করেন। 
মেট্রোপলিটন চেম্বারের সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর বলেন, কর কর্মকর্তাদের ব্যবহার ব্যবসাবান্ধব নয়। তিনি আরও বলেন, অবকাঠামো নির্মাণ ও মানবসম্পদ উন্নয়নে পর্যাপ্ত বিনিয়োগ হচ্ছে না। 
পিআরআইয়ের সুপারিশ: গবেষণা সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর মূল প্রবন্ধে রাজস্ব আদায় বাড়াতে আগামী বাজেটে বেশ কিছু খাতে শুল্ক-কর আরোপের প্রস্তাব দেন। তিনি বলেন, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে সাময়িকভাবে তৈরি পোশাকের রপ্তানিমূল্যের ওপর উৎসে কর দশমিক ৩ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়। আগামী অর্থবছরে তা কমপক্ষে আগের স্থানে, অর্থাৎ দশমিক ৮ শতাংশে উন্নীত করা উচিত। এতে ৬০০ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায় হবে। 
পিআরআই বেতনসহ বিভিন্ন আয়ের ওপর করারোপের প্রস্তাব দিয়ে বলেছে, এর মাধ্যমে এখন বাংলাদেশের মোট আয়করের মাত্র ২ শতাংশ আসে। আর যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ায় এ খাত থেকে আসে আয়করের যথাক্রমে ৮৭ দশমিক ৬ শতাংশ ও ৬২ দশমিক ৭ শতাংশ। 
প্রবন্ধটিতে বলা হয়েছে, বিদ্যমান কর হারের কারণে কম দামের সিগারেট ও বিড়িশিল্প থেকে কাঙ্ক্ষিত রাজস্ব আদায় হচ্ছে না। এ জন্য গত ছয় অর্থবছরে কমদামি সিগারেটের বাজার অংশীদারত্ব ৩৬ থেকে ৬৪ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। তাই কমবেশি সব দামের সিগারেটের জন্য অভিন্ন কর হারের প্রস্তাব করা হয়েছে। 
পিআরআই বলেছে, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে এখন কর ভার ৫৬ শতাংশ। এটা কমানো উচিত। এ ছাড়া প্রধান প্রধান মূলধনি পণ্যের ওপর ৩ শতাংশ আমদানি শুল্ক নির্ধারণ এবং এসব পণ্যের ওপর থেকে সম্পূরক ও নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক প্রত্যাহারের প্রস্তাব দেয় সংস্থাটি। 
আরেক প্রবন্ধে পিআরআইয়ের ভাইস চেয়ারম্যান সাদিক আহমদ চারটি সুপারিশ করেন। সুপারিশগুলো হচ্ছে রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি, স্বাস্থ্য-শিক্ষা-সামাজিক নিরাপত্তায় বরাদ্দ বাড়ানো, পাইপলাইনে থাকা বিদেশি সহায়তার ব্যবহার বৃদ্ধি এবং ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটে সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার ব্যয়ের বিষয়ে পরিষ্কার বক্তব্য প্রদান।
সভায় আরও বক্তব্য দেন মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিস এ খান।

http://www.prothom-alo.com/economy/article/523837/%E0%A6%A8%E0%A6%A4%E0%A7%81%E0%A6%A8-%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%B0-%E0%A6%86%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%BE%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%B6

 

The Daily Ittefaq

দেশের অর্থনৈতিক প্রয়োজনেই বড় বাজেট দরকার

ইত্তেফাক রিপোর্ট০৯ মে, ২০১৫ ইং ২১:৫১ মিঃ

‘দেশের অর্থনৈতিক প্রয়োজনেই বড় বাজেট দরকার’

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘৭ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার আলোকে অবকাঠামো ও মানব সম্পদ উন্নয়নে বড় ব্যয় করা প্রয়োজন। অর্থাত্, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রয়োজনেই বড় বাজেট প্রণয়ন করা দরকার। এটাকে যারা উচ্চাভিলাসী বলবে, তাদের জন্য আমার বক্তব্য হচ্ছে—আমি উন্নয়নমূলক কাজে উচ্চ আশাই পোষণ করি।’ শনিবার পিআরআই আয়োজিত ‘৭ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার আলোকে আগামী বাজেট’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘প্রায় ১৬ কোটি মানুষের দেশে মাত্র ১২ লাখ মানুষ ট্যক্স দেয়। এটা সত্যিই খুব লজ্জাজনক ও হতাশাজনক। অল্প হলেও সবারই কর দেয়া উচিত। অন্তত বাড়ির মালিকরা কর দিলেও এ সংখ্যা অনেক বেড়ে যায়।’

আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর (কিছু ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয়) ১১টি ক্যামিকেল আমদানি নিয়ন্ত্রণ করতে লাইসেন্সিং এবং উচ্চ কর আরোপের বিষয়টি বিবেচনা করব।’

টোবাকো খাতের করনীতি নিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের টোবাকো করনীতি খুব উন্নত নয়। বিড়ির ওপর কর বসানোর মাধ্যমে বড় অঙ্কের রাজস্ব আয় করা সম্ভব।’

মন্ত্রী বলেন, ‘পে রোল ট্যাক্সের বিষয়টি আমার জানা ছিল না। এ খাতেও বড় অঙ্কের রাজস্ব আয় করা সম্ভব। এ বিষয়ে কাজ করা হবে। এ ছাড়া, দেউলিয়া আইন (কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান দেউলিয়া হলে তার বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া) এবং মার্জার অ্যান্ড ইকুইজিশন (একাধিক কোম্পানি একীভূতকরণ) বিষয়ক আইন প্রণয়নের কাজ শুরু করব।’

পিআরআইয়ের চেয়ারম্যান ড. জায়েদি সাত্তারের সভাপতিত্বে সেমিনারে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন—মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর, সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ড. মুস্তাফিজুর রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন, সাবেক সচিব সোহেল চৌধুরী এবং অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) ভাইস চেয়ারম্যান আনিস এ খান প্রমুখ।

সেমিনারে পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান মনসুর এবং ভাইস চেয়ারম্যান ড. সাদিক আহমদ পৃথক দুটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

http://www.ittefaq.com.bd/trade/2015/05/09/21729.html

 

Dainik BanikBarta

পিআরআই-ইউকেএইডের বাজেট বিষয়ক সেমিনার

পে-রোল ট্যাক্স বাড়ানোর সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২০১৫-০৫-১০ ইং

সরকারের রাজস্ব আয় বাড়াতে পে-রোল ট্যাক্স বৃদ্ধি ছাড়াও তৈরি পোশাক ও নিটিং খাতের রফতানিকারকদের উচ্চহারে ট্যাক্স বাড়াতে হবে। এছাড়া বিভিন্ন ধরনের সিগারেট ও বিড়ির ওপর উচ্চহারে ট্যাক্স আরোপ এবং সব উেসর মাধ্যমে অর্জিত ক্যাপিটাল গেইনের ওপর ট্যাক্স বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। তবে পরিকল্পনা অনুসারে রাজস্ব বাড়াতে রাজনৈতিক সদিচ্ছার পাশাপাশি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) দক্ষতা ও সচ্ছতা বাড়াতে হবে। পাশাপাশি নীতি সহায়তার উন্নতি প্রয়োজন।

গতকাল রাজধানীতে আয়োজিত ‘ফিসকাল পলিসি ফর ২০১৫-১৬ বাজেট ইন দ্য কনটেক্স অব দ্য সেভেনথ প্লান’ শীর্ষক সেমিনারে এসব প্রস্তাব দেয় পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই)। ইউকেএইড এবং পিআরআই যৌথভাবে এ সেমিনারের আয়োজন করে। সেমিনারে দুটি নিবন্ধ উপস্থাপন করা হয়।

রাজস্ব আয়ের ওপর নিবন্ধ উপস্থাপন করেন পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। তিনি বলেন, সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার সঙ্গে রাজস্ব আহরণের ব্যাপক ঘাটতি রয়েছে। এ ঘাটতি দূর করতে এনবিআরের দক্ষতা বাড়াতে হবে। সেজন্য ট্যাক্স পলিসি ও অ্যাডমিনিস্ট্রেশন পুনর্গঠন এবং নীতিগুলোর মধ্যে রেশিওনালাইজ প্রয়োজন।

পে-রোলের মাধ্যমে যুক্তরাজ্য রাজস্ব আয়ের ৮৮ শতাংশ এবং অস্ট্রেলিয়া ৬৩ শতাংশ আহরণ করে থাকে। সেখানে বাংলাদেশের হার মাত্র ২ শতাংশ। অন্যদিকে আরএমজি ও নিটিং খাতে বাড়তি সুবিধা দেয়া হচ্ছে। এছাড়া ক্যাপিটাল গেইনের ওপর ট্যাক্স বাড়ানোর সুযোগ কাজে লাগাতে হবে। একই সঙ্গে সাপ্লিমেন্টারি ডিউটিকেও যৌক্তিক করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন বলেন, রাষ্ট্রায়ত্ত লোকসানি প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ করে দেয়া দরকার। সোনালী ব্যাংক ছাড়া অন্য তিনটি ব্যাংক বেসরকারীকরণ বা বিকল্প ব্যবহারের উদ্যোগ নিতে হবে। এছাড়া অনলাইন বাজার, ওষুধ, মিষ্টি, স্বর্ণ কেনাবেচা ট্যাক্সও ভ্যাটের আওতায় আনতে হবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবুল মুহিত বলেন, ‘পে-রোলের মাধ্যমে বাংলাদেশ বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে কম ট্যাক্স আয় করছে এটি জানা ছিল না। তাই এ খাতটির মাধ্যমে রাজস্ব আয় বাড়াতে প্রয়োজনীয় কাজ করা হবে।’ এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ প্রতিষ্ঠানের কাছে প্রস্তাবনা চান তিনি।

সবাইকে করের আওতায় আসতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, দেশে ১৬ কোটি মানুষের বসবাস, কিন্তু ট্যাক্স দিচ্ছে মাত্র ১১ লাখ মানুষ। এজন্য সবাইকে

মিনিমাম ট্যাক্স দেয়ার বিষয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে।

রাষ্ট্রায়ত্ত লোকসানি প্রতিষ্ঠানগুলো রাজনৈতিক কারণে বন্ধ করা যাচ্ছে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘লোকসানি এসব প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিকল্প উপায়ে কীভাবে সর্বোচ্চ ব্যবহার করা যায় সে বিষয়ে চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। এছাড়া দেশের মানুষের স্বাস্থ্য রক্ষায় সব ধরনের রাসায়নিক দ্রব্য আমদানিতে করারোপ এবং ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে আনতে ট্যাক্স কাঠামোয় পরিবর্তন আনা হবে।’ বিড়ি ও সিগারেটের ওপর করারোপের বিষয়ে তিনি বলেন, এ খাতে করারোপ না করার জন্য বেশ বড় ধরনের লবিং নিয়োজিত থাকে। এবার সেটা ঠেকানো হবে।

আর্থিক খাতে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা আনতে আর কোনো বাণিজ্যিক ব্যাংক কিংবা এবারের বাজেটও উচ্চাভিলাষী হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি সবসময়ই উচ্চাভিলাষী মানুষ। এজন্য মানুষকে বাজেটের মাধ্যমে স্বপ্ন দেখাতে এবং এসব বাস্তবায়নে কাজ করতে চাই। তবে এবারের বাজেটে মানবসম্পদ উন্নয়নের জন্য ব্যাপক পরিকল্পনা থাকবে।’

সেমিনারে অর্থমন্ত্রী দেশের বিভিন্ন খাতের বিষয়ে সরকারের নেয়া পরিকল্পনার বর্ণনা দেন। এর মধ্যে কৃষি খাত, রেলওয়ে, বড় অবকাঠামো বিশেষ করে পদ্মা সেতু এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম হাইওয়ে, দেশের নৌ ও স্থলবন্দরগুলোর উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপের বিষয়ে পরিকল্পনা তুলে ধরেন তিনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এমসিসিআইয়ের সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর বলেন, ‘ট্যাক্স ও ভ্যাট নীতিমালাকে আরো বেশি ব্যবসাবান্ধব করতে হবে। এছাড়া এনবিআরকে দক্ষতা বাড়াতে হবে।’ সেমিনারে অন্যদের মধ্যে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের নির্বাহী পরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান, অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের ভাইস চেয়ারম্যান আনিস এ খান উপস্থিত ছিলেন।

http://www.bonikbarta.com/2015-05-10/news/details/36226.html

 

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

খবর অর্থনীতি > সবাইকে করের আওতায় আনতে চান অর্থমন্ত্রী

সবাইকে করের আওতায় আনতে চান অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক,  বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Published: 2015-05-09 19:43:47.0 BdST Updated: 2015-05-09 21:56:40.0 BdST

http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2015/05/09/21_finance-minister_abul-maal-abdul-muhith_090515_0002.jpg/ALTERNATES/w620/21_Finance+Minister_Abul+Maal+Abdul+Muhith_090515_0002.jpg

ন্যূনতম হারে হলেও দেশেরউপার্জনক্ষমসব মানুষের উপর করারোপের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত

শনিবার রাজধানীতে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের আয়োজনে রাজস্ব আহরণের কৌশল নিয়ে সেমিনারের একথা বলেন তিনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী বলেন, “দেশের ১৬ কোটি মানুষের মাত্র ১১ লাখ মানুষ কর দেয়। এটা অযৌক্তিক। সবাইকে একটা ন্যূনতম কর দিতে হবে, যা আগামী বাজেট থেকে বাস্তবায়িত হতে পারে।

“আমাদের রাজস্ব আহরণের কৌশল ভালো নয়। দেশের সাড়ে ১৮ লাখ মানুষের টিআইএন থাকলেও কর দেয় মাত্র ১১ লাখ মানুষ। এটা খুবই লজ্জার এবং অবিশ্বাস্য।”

মুহিত বলেন, টেলিফোন অপারেটর বা তথ্য প্রযুক্তির অন্যান্য কোম্পানিগুলোর কর যৌক্তিক হারে নির্ধারণে বিটিআরসিসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয় দরকার।

http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2015/05/09/21_finance-minister_abul-maal-abdul-muhith_090515_0007.jpg1/ALTERNATES/w300/21_Finance+Minister_Abul+Maal+Abdul+Muhith_090515_0007.jpg

পলিসি রিচার্স ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত ‘সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় রাজস্ব আহরণ কৌশল’ শীর্ষক সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত করার জন্য সবচেয় বেশি প্রয়োজন সময়মতো অগ্রাধিকারভিত্তিক বড় অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা।

একই সঙ্গে দেশের ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে সুদের হার কমানোর ওপর জোর দেন নাসিম মঞ্জুর।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধে পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, প্রতিবছর বাজেটে রাজস্ব আহরণের যে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় তার ২ থেকে ৪ শতাংশ পর্যন্ত আদায় করা সম্ভব হয় না। এজন্য ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার অর্থ যোগান দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

এমতাবস্থায় সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে রাজস্ব সংগ্রহ বাড়াতে আহরণ ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নের উপর জোর দেন তিনি।

সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন  পিআরআইয়ের চেয়ারম্যান জায়েদী সাত্তার, ভাইস চেয়ারম্যান সাদিক আহমেদ, অর্থনীতিবিদ ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন ও সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান।

http://bangla.bdnews24.com/economy/article966056.bdnews

 

The Daily Samakal

প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ১০ মে ২০১৫, ০১:২৪:২৯

অঅ-অ+

printer

সবার ওপর নূ্যনতম করের পরিকল্পনা অর্থমন্ত্রীর

http://www.samakal.net/assets/images/news_images/2015/05/10/000_135942.jpg

বিশেষ প্রতিনিধি

অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ বাড়াতে আগামী বাজেটে সবার ওপর নূ্যনতম কর (মিনিমাম ট্যাক্স) আরোপের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। একইসঙ্গে তৈরি পোশাক খাতের 'উৎসে কর' বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। গতকাল শনিবার বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পিআরআই আয়োজিত প্রাক-বাজেট আলোচনায় এ কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। তিনি জানান, আসন্ন ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ মানবসম্পদ উন্নয়নে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে। এ ছাড়া, সামাজিক সুরক্ষা, রেলে নজর দেওয়া হবে বলে মন্তব্য করেন মুহিত। অনুষ্ঠানে দেশের করদাতার সংখ্যা নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, ১৬ কোটি জনসংখ্যার এই দেশে কর দিচ্ছেন মাত্র ১১ লাখ। এটি খুবই লজ্জার বিষয় উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, এত কম লোক কর দেন এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। 
তবে পিআরআই কর্মকর্তারা অর্থমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেন, এ মুহূর্তে বাংলাদেশে সবার ওপর কর আরোপের সময় আসেনি। কেননা, আমাদের মাথাপিছু আয় অন্যান্য দেশের তুলনায় এখনও কম। এ ছাড়া এখনও মোট জনসংখ্যার একটি বড় অংশ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে। তবে এ বক্তব্যের পর কোনো জবাব দেননি অর্থমন্ত্রী। 
জানা গেছে, বর্তমানে তৈরি পোশাক খাতের 'উৎসে কর' হার শূন্য দশমিক ৩ শতাংশ। অর্থাৎ পোশাক পণ্য রফতানি করে ১০০ টাকা আয় হলে তার ওপর ৩০ পয়সা কর দিতে হয়। এই সুবিধা চলতি অর্থবছরের ৩০ জুন পর্যন্ত দেওয়া আছে। 
আলোচনা সভায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন, সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান ও পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, পোশাক খাতে যথেষ্ট কর সুবিধা দেওয়া হয়েছে এবং দীর্ঘ সময় ধরে এটি ভোগ করছেন এ খাতের উদ্যোক্তারা। তাই পোশাক খাতে উৎসে কর বৃদ্ধির প্রস্তাব করেন তারা। 
জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, আপনাদের প্রস্তাব যুক্তিসঙ্গত। একটি খাতকে দীর্ঘ সময় ধরে বেশি সুবিধা দেওয়া উচিত নয়। আগামীতে এ খাতে উৎসে কর বাড়ানো হবে বলে মন্তব্য করেন মুহিত। 
আসন্ন ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটকে সামনে রেখে এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পিআরআই। রাজধানীর বনানী পিআরআই অফিসে রাজস্ব আহরণের কৌশল বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। সভায় সরকারি ব্যয়ের কৌশল বিষয়ে প্রবন্ধ পেশ করেন সংস্থার ভাইস চেয়ারম্যান ও বিশ্বব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা ড. সাদিক আহমেদ। এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন মেট্রোপলিটন চেম্বারের সভাপতি নাসিম মঞ্জুর, ট্যারিফ কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড.মজিবুর রহমান, সাবেক বাণিজ্য সচিব সোহেল আহমেদ চৌধুরী ও ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন এবিবির ভাইস চেয়া

Speech